Close

ইইউ ঋণদাতাদের রাশিয়া থেকে সরে আসতে বলছে ইসিবি

ইইউ ঋণদাতাদের তড়িৎ গতিতে ঋণ প্রত্যাহার করার জন্য জোর দিচ্ছে ইসিবি। নিষেধাজ্ঞার জন্য ব্যবসার ক্ষতির কারণ দেখিয়েই এই নির্দেশ ইসিবির।

ইইউ দ্বারা নিষেধাজ্ঞাকৃত দেশে ব্যবসা করার ঝুঁকি বৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক (ইসিবি) ঋণদাতা ব্যাঙ্কগুলিকে রাশিয়া থেকে তাদের ঋণ প্রত্যাহার ত্বরান্বিত করার জন্য অনুরোধ করেছে , মঙ্গলবার রয়টার্স জানিয়েছে। সূত্রের খবর, ইসিবি তত্ত্বাবধায়ক প্রধান আন্দ্রেয়া এনরিয়া জানিয়েছেন, ওয়াগনার গ্রুপের প্রাইভেট মিলিটারি কোম্পানির শনিবারের বিদ্রোহের পরে বিষয়টি নতুন তাৎপর্যে উন্নীত হয়েছে।

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যদের কাছে একটি চিঠিতে, এনরিয়া বলেছেন যে তার ইউনিট “এই ব্যাঙ্কগুলিকে রোডম্যাপ গ্রহণ করে এবং নিয়মিতভাবে তাদের ব্যবস্থাপনা সংস্থা ও ইসিবি ব্যাঙ্কিং-এর পরিকল্পনা সমূহের তত্ত্বাবধানে রিপোর্ট করার মাধ্যমে তাদের পরিমাণ হ্রাস এবং প্রত্যাহার কৌশলগুলি দ্রুততর করার জন্য স্পষ্ট অনুরোধ করেছিল।”

কর্মকর্তা মস্কোর সাথে ব্যবসা করার সাথে যুক্ত ভাবমূর্তিগত, আইনী এবং আর্থিক ঝুঁকির দিকে ইঙ্গিত করেছিলেন। এনরিয়া এর আগে স্বীকার করেছিলেন যে ইইউ ব্যাঙ্কগুলির রাশিয়ান শাখাগুলি তাদের কার্যক্রম সীমিত করেছে; উদাহরণস্বরূপ, তারা আর নতুন ঋণ দিচ্ছে না। তিনি আরও বলেছেন যে নতুন আইনের কারণে রাশিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার প্রক্রিয়া কঠিনতর হয়ে উঠেছে, যে আইন অনুযায়ী ঋণদাতাদের রাশিয়া থেকে ঋণ প্রত্যাহারের প্রক্রিয়ায় রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের প্রয়োজন রয়েছে।

ইউক্রেনে মস্কোর সামরিক অভিযান শুরুর পর পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার মধ্যে গত বছর বেশ কয়েকটি বিদেশী ব্যাঙ্ক রাশিয়া ছেড়েছে। তবে, ইউরোজোনের কিছু ব্যাঙ্ক সহ বেশ কয়েকটি ঋণদাতা ব্যাঙ্ক রাশিয়ায় কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে রাইফিসেন ব্যাঙ্ক এবং ইউনিক্রেডিট ব্যাঙ্ক, যা অস্ট্রিয়ার রাইফসেন ব্যাঙ্ক ইন্টারন্যাশনাল (RBI) এবং ইতালির ইউনিক্রেডিট-এর সহযোগী সংস্থা।

উভয়ই রাশিয়ান অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, ইউরোয় লেনদেনকে আরও সক্ষম করে। রাশিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ১৩টি পদ্ধতিগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ ক্রেডিট প্রতিষ্ঠানের তালিকায় তারাই একমাত্র বিদেশী সংস্থা। রাইফিসেন এপ্রিলে ঘোষণা করেছিল যে এটি রাশিয়ায় তার ব্যবসা বিক্রি করার কথা বিবেচনা করছে, তবে সতর্ক করে দিয়েছিল যে এটি রাশিয়া থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিলে উল্লেখযোগ্য ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

ব্যাঙ্কের তত্ত্বাবধায়ক বোর্ডের চেয়ারম্যান, এরউইন হামেসেডার সেই সময়ে রাশিয়ায় ফার্মের কাজের সমালোচকদের “নৈতিকভাবে অহংকারী” বলে বর্ণনা করেছিলেন এবং তাদের “সাদাকালো নৈতিক চিন্তাভাবনার” অধিকারী বলে অভিযুক্ত করেছিলেন। তিনি দাবি করেন যে বেশিরভাগ পশ্চিমা ব্যবসায়ীক সংস্থা নিষেধাজ্ঞা এবং ভূ-রাজনৈতিক সংকট সত্ত্বেও দেশে কাজ করে চলেছে।

রাইফসেনের সিইও জোহান স্ট্রবল সম্প্রতি বলেছেন যে তিনি একটি সমাধান নিয়ে “তড়িৎ গতিতে” কাজ করছেন কারণ ব্যাঙ্কটি ইইউ দ্বারা নিষিদ্ধকৃত দেশ ছেড়ে যাওয়ার চাপের মধ্যে শেয়ারহোল্ডারদের কাছে তার রাশিয়ান অংশ হস্তান্তর করতে চাইছিল।

লেখক

Leave a comment
scroll to top