Close

আর কতদূর চাঁদ? চন্দ্রযান-৩ এর গতিবিধি জানালো ইসরো

চন্দ্রযান-৩ গত ১৪ই জুলাই পৃথিবী ছেড়েছে। তবে ইসরো জানিয়েছে ইতিমধ্যেই পৃথিবীর অরবিট ছেড়ে চাঁদের কক্ষপথে ঢুকে পড়েছে চন্দ্রযান-৩।

চন্দ্রযান-৩ গত ১৪ই জুলাই পৃথিবী ছেড়েছে। তবে ইসরো জানিয়েছে ইতিমধ্যেই পৃথিবীর অরবিট ছেড়ে চাঁদের কক্ষপথে ঢুকে পড়েছে চন্দ্রযান-৩।

গত ১৪ই জুলাই পৃথিবী ছেড়েছে চন্দ্রযান-৩। তবে ইসরো জানিয়েছে ইতিমধ্যেই পৃথিবীর চারিদিকে চক্কর কাটা শেষ করে চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করেছে চন্দ্রযান-৩। ট্রান্সলুনার ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে চাঁদের কক্ষপথে ছুড়ে দেওয়া হয়েছে সেটিকে। আজ ৫ই আগস্ট চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করেছে সেটি। ট্রান্সলুনার ইঞ্জেকশনে চন্দ্রযান ৩-এর প্রপালশন চালু করে তার গতি অত্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। লক্ষ্য ছিল যাতে পৃথিবীর মাধ্যকর্ষণের বাধা কাটিয়ে চাঁদের দিকে এগিয়ে যেতে পারে। আজ সেই লক্ষ্যে সফল হয়েছে ইসরো।

এর আগে ইসরো জানিয়েছিল চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে অবতরণ করবে চন্দ্রযান ৩-র ল্যান্ডার এবং রোভার। চাঁদের ৭০ ডিগ্রি দ্রাঘিমায় অবতরণের পরিকল্পনা রয়েছে ভারতের এই মহাকাশযানের। এই এলাকাটি চাঁদের দক্ষিণ মেরু থেকে ৩০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এখনও পর্যন্ত যে তিনটি দেশ চাঁদে সফল ভাবে মহাকাশযানের সফ্ট ল্যান্ডিং করাতে পেরেছে তাদের কেউই চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণ করতে পারেনি। তিনটি দেশই চাঁদের নিরক্ষীয় অঞ্চলের কাছে মহাকাশযান অবতরণ করেছে। এই অভিযান সফল হলে ভারত সেই চতুর্থ দেশ হবে যা চাঁদে মহাকাশযানের সফ্ট ল্যান্ডিং করাতে পারবে এবং সেই প্রথম দেশ হবে যা চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে সফ্ট ল্যান্ডিং করবে।

চন্দ্রযান-৩ চাঁদের পৃষ্ঠের রেগোলিথ, চাঁদের পৃষ্ঠের কম্পন ও সান্দ্রতার তাপীয়-ভৌত অবস্থা নিয়ে একাধিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে বলে জানা গিয়েছে। এছাড়াও চন্দ্রপৃষ্ঠের উষ্ণতা, সূর্যালোকের সঙ্গে বিক্রিয়া ইত্যাদি বিভিন্ন চরম পরিস্থিতির সঙ্গে যাতে চন্দ্রজান-৩ এর যন্ত্রপাতি মানিয়ে নিতে পারে, তার জন্য দফায় দফায় মহড়া চালিয়েছে ইসরো। চন্দ্রযান-৩ এর রোভারে রয়েছে ‘আলফা কণা এক্স-রে স্পেকট্রোমিটার’ এবং ‘লেজার ইনডিউসড ব্রেকডাউন স্পেকট্রোস্কোপি’। ল্যান্ডিং বা অবতরণ ক্ষেত্রের মৌলিক নানা বৈশিষ্ট্য বিষয়ক তথ্য যা সরাসরি পাঠিয়ে দেবে বেঙ্গালুরুতে, ইসরোর সদর দফতরে।

গত ১৪ জুলাই ২০২৩, অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টার থেকে চন্দ্রযান-৩ এর সফল উৎক্ষেপণ হয়। এটিকে মহাকাশে পৌঁছে দেয় ইসরোর সবচেয়ে ভারী ও শক্তিশালী রকেট ‘লঞ্চ ভেহিকল মার্ক থ্রি।’ যার আগের নাম ছিল ‘জিএসএলভি মার্ক থ্রি’। ২০১৯ সালে শেষমেশ সফল হয়নি চন্দ্রযান-২ মিশন। সফটওয়্যারের একটি ছোট্ট ভুলে ল্যান্ডার তার ক্ষেপণপথ বা ট্র্যাজেকটরি থেকে সরে গিয়েছিল। ‘সফট ল্যান্ডিং’ বা ধীরেসুস্থে গতি কমিয়ে নেমে আসার বদলে ক্র্যাশ হয়ে যায় ল্যান্ডারটি। ল্যান্ডারটি উচ্চ বেগে আছড়ে পড়ে চুরমার হয়ে যায়। খাতায় কলমে চাঁদের কক্ষপথে ‘অরবিটার’ তখনও অবশিষ্ট থাকলেও মিশনের লক্ষ্যমাত্রা কার্যত ব্যর্থ হয় ইসরোর। এবার সেই ভুলের পুনরাবৃত্তি হবে না বলেই মনে করছে বিজ্ঞানীমহল।

লেখক

Leave a comment
scroll to top