Close

বিরোধীদের প্রতি মোলায়েম সুর; ২১শে জুলাই জোটকেই ঊর্ধ্বে রাখল মমতা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে বিরোধীদের নিয়ে মোলায়েম সুর। এই ২১শে জুলাই কেন্দ্রের বিরোধী জোটকেই ঊর্ধ্বে তুলে ধরলেন তিনি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে বিরোধীদের নিয়ে মোলায়েম সুর। এই ২১শে জুলাই কেন্দ্রের বিরোধী জোটকেই ঊর্ধ্বে তুলে ধরলেন তিনি।

সভায় সরাসরি কংগ্রেসের প্রতি কোনও আক্রমণ নেই। সিপিআইএমের নাম নিলেও তাতে সে ভাবে আক্রমণ ছিল না। শুক্রবার ২১ জুলাইয়ের সভামঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ৪৩ মিনিটের বক্তৃতার রাজনৈতিক নির্যাস হিসেবে উঠে এলো জোটের ধারণা। যা থেকে এটা অন্ততঃস্পষ্ট যে, তৃণমূল কংগ্রেসের সুপ্রীমোর কাছে এই মুহূর্তে ‘ফার্স্ট চয়েস’ ‘ইন্ডিয়া’। তাঁর কাছে এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে বিজেপির বিরোধী জোট এবং তার জোট সাথীরা।

আজ শুক্রবার ২১শে জুলাইয়ের সভায় একটি বারই মমতা তাঁর বক্তৃতায় বামেদের প্রসঙ্গ টানেন। তা-ও পঞ্চায়েত নির্বাচনে হিংসার প্রেক্ষিতে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের জমানার প্রসঙ্গে। বক্তৃতাকালে মমতা বলেন, ‘‘বুদ্ধদেববাবুর আমলে কী হয়েছিল? মমতার নামে আপনাদের তো চিরকাল ‘অ্যাল্যার্জি’! ২০০৩ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে ৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল। ২০০৮ সালে ভোটের দিনে ৩৯ জন মারা গিয়েছিল। এ বার মারা গিয়েছেন ২৯ জন। তার মধ্যে তৃণমূলেরই ১৮ জন।’’

পঞ্চায়েত ভোটপ্রক্রিয়ায় ‘হিংসা’ এবং ‘সন্ত্রাস’ নিয়ে সরকার তথা শাসকদলকে সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে। বোঝাই যাচ্ছে সেই কারণেই মমতা ওই তুলনা টেনেছেন। পাশাপাশিই, উদাহরণ দিয়ে বলেছেন, ‘‘৭১ হাজার বুথে ভোট হয়েছে। ভাঙড়ে হাঙরেরা গোলমাল করেছে। ডোমকলে গোলমাল হয়েছে। সেখানে আমরা হেরেছি। চোপড়া-ইসলামপুরে আর কোচবিহারে গোলমাল হয়েছিল। যে ঘটনাগুলো ঘটেছে, তার জন্য আমি দুঃখিত।’’ আর বক্তৃতার শেষ দিকে বলেছেন, ‘‘আমাদের পঞ্চায়েতগুলো সিপিএমের সরকারের কায়দায় কাজ করবে না। আমাদের সরকারের মতো করবে।’’ এই পর্যন্তই! যা তুলনায় অনেক ‘নরম’ বলেই শাসকদলের অনেকে মনে করছেন।

আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তৃতায় আরও একটি বিষয় লক্ষণীয়। পঞ্চায়েত ভোটের প্রসঙ্গে সিপিএমের চেয়ে তিনি নরেন্দ্র মোদীকে বিঁধেছেন অনেক বেশি তীক্ষ্ণতার সাথে। এই বিষয়ে সেই সমালোচনার প্রসঙ্গে বাঙালি-অবাঙালি প্রসঙ্গটিও জুড়ে দিয়েছেন মমতা। তিনি বলছেন, ‘‘উনি রাজস্থান, ভোপাল— সর্বত্র গিয়ে বাংলার নিন্দা করে বেড়াচ্ছেন। মোদীজি, আপনি বাংলার বদনাম করছেন। বাংলাকে অসম্মান করছেন।’’ তবে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূলের সর্বময় নেত্রীর কাছ থেকে শুক্রবার মমতা বেশি করে চোখে পড়েছেন কেন্দ্রীয় বিরোধী জোট ‘ইন্ডিয়া’-র প্রতিনিধি হিসাবে। বাংলায় বক্তৃতার মধ্যে বিশেষ বিশেষ জায়গায় ব্যবহার করেছেন হিন্দি ভাষা। বলেছেন, ‘‘হিন্দুস্থান জিতেগা, মোদী হারেগা, ভাজপা হারেগা।’’

সরাসরি না হলেও নীতি স্পষ্ট করে দিলেন তৃণমূল নেত্রী। আক্রমণ শানালেন শুধু প্রধানমন্ত্রী মোদীর নাম করে। আর কারও নাম করে নয়। এমনকি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কথাও শোনা যায়নি মমতার মুখে। বার বার তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন, লক্ষ্য দিল্লির সরকার বদল। লক্ষ্য প্রধানমন্ত্রী বদল। পাশাপাশিই তিনি জানিয়ে দিলেন, জোটর ‘মুখ’ হতে তৃণমূলের আলাদা কোনও বাসনা নেই। মমতা বলেছেন, ‘‘আমরা ইনক্লুসিভ (সম্মিলিত) জোট তৈরি করতে পেরেছি। সবটাই ‘ইন্ডিয়া’র ব্যানারে হবে।’’ আরও বলেছেন, ‘‘আমরা চেয়ারকে কেয়ার করি না। ‘ইন্ডিয়া’ লড়বে। তৃণমূল কংগ্রেস পাশে সৈনিকের মতো ঝান্ডা নিয়ে পাশে দাঁড়িয়ে থাকবে। বিজেপি দেশ থেকে রাজনৈতিক ভাবে বিদায় নিক। আর সহ্য করা যাচ্ছে না। সব সীমা পার করে গিয়েছে।’’

লেখক

Leave a comment
scroll to top