Close

সুপ্রিম কোর্টের স্থগীতাদেশের পরেই CBI-এর তলব অভিষেক ব্যানার্জিকে

হাইকোর্টের রায়ে স্থগীতাদেশ শীর্ষ আদলতের। কয়েক ঘন্টার মধ্যে অভিষেক ব্যানার্জীকে নোটিশ পাঠাল CBI

https://twitter.com/abhishekaitc/status/1617892549229965312

নিয়োগদুর্নীতি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ অভিষেক ব্যানার্জিকে কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো (CBI) মঙ্গলবার তলব করেছে। সুপ্রিম কোর্ট তার বিরুদ্ধে তদন্ত স্থগিত করার রায় জানানোর মাত্র কয়েক ঘন্টা পরে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ভাইপো এই নোটিশ পান।

কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় একটি নির্দেশনামায় জানিয়েছিলেন, প্রয়োজনে অভিষেককে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবে ED, CBI-এর মতো কেন্দ্রীয় সংস্থা। সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন তৃণমূল সাংসদ। সেই মামলায় হাইকোর্টের রায়ে স্থগিতাদেশ দিয়েছিল শীর্ষ আদালত। পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য হয় ২৩শে এপ্রিল।

নিয়োগদুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনের সংগঠক ইন্দ্রজিৎ ঘোষ ইস্ট পোস্ট বাংলাকে বলেন, “আইনি জটিলতা নিয়ে আমার কিছু বলার নেই, কিন্তু ED-CBI এর সামনে যেতে অভিষেক ব্যানার্জীর সমস্যা কোথায় যদি তিনি কোন দোষ নাই করে থাকেন, সুপ্রিম কোর্টে যেতে হচ্ছে কেন।”


CBI -এর এই সীদ্ধান্তে বিরোধী দলগুলির সঙ্গে এবং কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির যথেচ্ছ অপব্যবহারে অভিযুক্ত বিজেপি-নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রের মধ্যে তীব্র দ্বন্দ্ব বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। গতকালই, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে মাদক মামলায় সাক্ষী হিসাবে CBI জিজ্ঞাসাবাদ করে।

বিরোধী নেতারা গত মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে একটি চিঠিতে অভিযোগ করেছে যে, তাঁর সরকার, বিজেপি, উদ্দেশ্যমূলকভাবে কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলায় বিরোধীদের জর্জরিত করছে।

পরে, দিল্লিতে CBI-এর এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইতে কাউকে ছাড় দেবেন না। “দেশ আপনাদের সাথে আছে।”

আজ তাঁর ভাইপোকে CBI তলব করার আগে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেছেন যে, ২০২৪ সালে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের জন্য বিরোধী দলগুলি যখনই ঐক্যের কথা বলে তখনই কেন্দ্র CBI এবং অন্যান্য সংস্থাগুলিকে পাঠাতে থাকে। তারা অরবিন্দ কেজরিওয়াল বিষয়টিকে একটি নমুনা হিসাবে দেখাতে চায় যে “দেখুন, আপনারও একই অবস্থা হবে।”

প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে গত বছরের জুলাইয়ে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ED) গ্রেপ্তার করেছিল। ED এই মামলায় অর্থ লেনদেনের প্রবাহ অনুসরণ করছে। এই মামলায় শিক্ষা দফতরের একাধিক আধিকারিক এবং স্থানীয় তৃণমূল নেতাও বিচারাধীন রয়েছেন।

কিছু প্রার্থী যারা ২০১৪ সালে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার জন্য যোগ্যতা অর্জন করা সত্ত্বেও চাকরি থেকে বঞ্চিত হন, তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে CBI তদন্ত শুরু হয়। কলকাতা হাইকোর্ট পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের শিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম খেয়াল করেছে।

লেখক

Leave a comment
scroll to top