Close

সৌদির চিঠি: রিয়াধে শরীর খারাপের মরশুম (পর্ব ১৯)

রিয়াধে আসতে চলেছে কুখ্যাত শীত। সাথেই শুরু শরীর খারাপের মরশুম। অতিরিক্ত খাটুনির জেরে অসুস্থ বাঙালি শ্রমিক। কী চলছে সেখানে লিখছে পথিকৃৎ।

রিয়াধে আসতে চলেছে কুখ্যাত শীত। সাথেই শুরু শরীর খারাপের মরশুম। অতিরিক্ত খাটুনির জেরে অসুস্থ বাঙালি শ্রমিক। কী চলছে সেখানে লিখছে পথিকৃৎ।

সৌদির চিঠি পর্ব ১৮

শরীর খারাপের মরশুম শুরু হয়ে গেছে! আবহাওয়া বদলাতে শুরু করেছে, রিয়াধের কুখ্যাত শীত কড়া নাড়ছে। এরই মধ্যে খুব স্বাভাবিক ভাবেই রিয়াধে বাচ্চা বুড়ো সবাই এক এক করে অসুস্থ হতে শুরু হয়েছে যথারীতি। কলকাতাতেও ঠিক একই কান্ড ঘটছে শুনলাম, অনেকে নাকি ভাইরাল ফিভারে আক্রান্ত। এইখানে আমাদের কোম্পানির মধ্যে এই সপ্তাহেই দুইজন কাহিল হয়ে পড়লেন। তাদের মধ্যে একজন, নদীয়া জেলার আনিস(নাম পরিবর্তিত) বেশ অদ্ভুত ভাবেই অসুস্থ হলেন। আবার একটু তলিয়ে দেখলে বোঝা যায় যে এটাই হওয়ার ছিল। কারন এমন কাজের চাপ, এটা না হয়ে রেহাই ছিল না।

আনিস একসময়ে লাগাতার ১২-১৪ ঘন্টা কাজ করতো, কিচেনে অত্যন্ত পারদর্শী এক কর্মী উনি। দুবাইয়ে শেফের কাজ করে আসা আনিস সবসময় বলতে থাকেন যে সৌদিতে নাকি দুবাইয়ের মতো উঁচু দরের রেস্টুরেন্ট ব্যবসা নেই, এই আমোদ, ভ্রমণের ব্যবস্থার দিক দিয়ে সৌদি এখনও অনেকটাই পিছিয়ে দুবাই অথবা এমিরেটসের থেকে। এটা শুধু ওর বক্তব্য নয়, দুবাইয়ে কাজ করে আসা আমাদের যেকোনো কর্মচারী, ম্যানেজারেরই তাই মতামত। আনিস দুবাই তে এর থেকে অনেক গুন বেশি কাজ করে এসেও জানাচ্ছেন যে এখানে (রিয়াধে) কাজের মান একদমই ঠিক নেই।

সকালবেলা আনিস ডিউটি যাওয়ার জন্য তৈরি হয়েও ধপ করে পড়ে গেল, শরীর যেন আর একদমই দিচ্ছে না। একই সাথে শীত করছে আবার ঘাম হয়ে চলেছে। হাত পা যেন আর চলছে না। ক্লান্তি এবং আতঙ্কে আনিস আর বিছানা থেকে ওঠার সাহস করলেন না। নিজের শেফ কে ফোন করে জানিয়ে ছুটি নিতে বাধ্য হলেন মধ্যবয়স্ক যুবকটি। পরে আমাদের সাহায্যে ডাক্তারের কাছে গিয়ে জানতে পারলেন চিন্তার নাকি কোনো কারণই নেই, অত্যধিক পরিশ্রম এবং খাওয়াদাওয়ার অনিয়মের কারনে এই হাল। তাইই যদি হয়, তাহলে তো সেটাই বেশি দুশ্চিন্তার কারন বলে আমি মনে করবো। একজন কর্মঠ, তরতাজা মানুষ বেশি কাজ করতে করতে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন সেটা চিন্তার বিষয় হবে না? ডাক্তার জানালেন রিয়াধের গরমটাও এই ক্ষেত্রে দায়ী। হ্যাঁ সেটা নিয়ে তো আমরা সমপূর্ণ সহমত কারন সত্যিই বিভৎস গরম পরে সৌদির রাজধানীতে।

আনিস কে দেখেছিলেন কোনও পাকিস্তানি মহিলা ডাক্তার। তিনি নাকি বেশ বিরক্ত হয়েছিলেন কারন তিনি মনে করেন এই টুকু কারন এর জন্য ডাক্তারের কাছে আসা প্রয়োজন হয়না। তিনি ভাবলেন শরীর খারাপের বাহানা দিয়ে ছুটি পাওয়ার আশায় তার কাছে আগমন। আনিসকে স্যালাইন দিতে হয়েছিল হাসপাতালে সেদিন। তবুও সৌদি রুগী না পেয়ে ভারতীয়, বাঙালি শ্রমিক কে পেয়ে হয়তো একটু বিরক্ত হয়েছেন তিনি সময় নষ্ট হচ্ছে ভেবে। তাই একদিনের বেশি ছুটি কিছুতেই লিখে দিলেন না। কোম্পানিও যথারীতি খুশি যে আনিস আর বেশি সময় কাজ ছেড়ে থাকবে না। আমার কাছে আনিসের রোগের থেকে এই বিষয়টা বেশি দুশ্চিন্তার কারন।

যেই মানুষটি কাজ ছাড়া থাকতে পারেন না, দেশে ফিরলে বাড়িতে করার মত কিছু না পেলে কৃষ্ণনগর শিয়ালদহ লাইনে হকারি করতে বেরিয়ে পড়েন, যিনি একবার কিচেনে ঢুকলে পরিবার কেন, সিনিয়র দের ফোন ও ধরেন না কাজে মন দেওয়ার জন্য, সেই মানুষকেও এত খাটানো হচ্ছে যে সে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন, এবং তা নিয়ে ডাক্তারেরও কোনো হেলদোল নেই আর ম্যানেজমেন্টের কথা তো ছেড়েই দিলাম। আনিস যত ঘন্টাই কাজ করুক, প্রতিদিন রুমে ফিরে তিনি একবার রান্না করবেনই। শান্ত হয়ে, কাজ ছাড়া বসে থাকার মতো মানুষ নয় সে। এখন আমাদের মানতে হবে তার নাকি কিছুই হয়নি, এমনিই ডাক্তারের কাছে পৌঁছে গেছেন।

কলকাতার বেকবাগানের আরো এক ছেলে সাফদার(নাম পরিবর্তিত) এই সপ্তাহে একদিন সকালে গিয়ে দুপুরেই ফেরত চলে এল। টনসিলের মারাত্মক যন্ত্রনা থেকে মাথা ব্যাথা, সব মিলিয়ে উঠে বসার মতো অবস্থাও নেই। ওয়েটারের কাজ ছেলেটার, গলায় ওরকম টনসিলের ব্যাথা নিয়ে গেস্টের সাথে কথাই বলতে পারবে না, এই কারণ বুঝিয়ে ফেরত আসতে সক্ষম হলো। কিন্তু পরেরদিন দেখি আবার ডিউটি পৌঁছে গেছে, গলা দিয়ে একটা শব্দ বেরোচ্ছে না, তবুও সপ্তাহের শেষের ভিড়ের জন্য ছুটি পাওয়ার কোনও আশা নেই বুঝতে পেরে সে কাজে আসতে বাধ্য হয়ছে। এই হেন পরিস্থিতি তে ম্যানেজমেন্ট সহানুভূতি তো দূরের কথা, কাজ কম হওয়ার জন্য সেই শ্রমিক কেই দায়ী করছে। শ্রমিকদের বেশি খাটিয়ে অসুস্থ করে দিয়ে আবার তাদেরকেই দায়ী করা হচ্ছে যে কেন সেই মানুষটি আরো উৎপাদন দিচ্ছে না! নিরুপায় শ্রমিক রাও মুখ বুজে মেনে নিতে বাধ্য হচ্ছেন ঘরে ওই ছোট্ট দুটো বাচ্চার কথা ভেবে…

লেখক

Leave a comment
scroll to top