Close

লেপার্ড ২ ট্যাংক প্রশ্নে মতবদলের ইঙ্গিত জার্মানির

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন যে যদি পোল্যান্ড ইউক্রেন কে জার্মানির বানানো লেপার্ড ২ ট্যাংক সরবাহ করতে চায় তাহলে বার্লিন বাঁধা দেবে না। এর আগে জার্মানি ইউক্রেন কে লেপার্ড ২ ট্যাংক দেওয়ার ক্ষেত্রে গড়িমসি করেছিল রাশিয়ার সাথে উত্তেজনা প্রশমনের স্বার্থে।

a rusty metal tank near the brown trees

Photo by Alen Bešlija on Pexels.com

পোল্যান্ড ইউক্রেনে লেপার্ড-২ ট্যাংক পাঠাতে চাইলে জার্মানি সেখানে বাধা দেবে না বলে জানিয়েছেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালিনা বেয়ারবক। তেমনটা হলে নতুন করে রুশ হামলার আশঙ্কায় থাকা ইউক্রেনের জন্য তা হবে যুগান্তকারী এক সিদ্ধান্ত।
পশ্চিমা মিত্ররা গত সপ্তাহে ইউক্রেনের জন্য বিলিয়ন ডলার অস্ত্র দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। কিন্তু তারা ট্যাঙ্ক সরবরাহের বিষয়ে জার্মানিকে ভেটো তুলে নিতে রাজি করাতে ব্যর্থ হয়েছে।

তবে জার্মানির অবস্থান পরিবর্তনের ইঙ্গিত করে রবিবার, ২২শে জানুয়ারি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী বেয়ারবক বলেছেন, পোল্যান্ড যদি ইউক্রেনে জার্মান অনুমোদন ছাড়াই তার লেপার্ড ২ ট্যাঙ্ক পাঠায় তাহলে তার সরকার তাতে বাধা দেবে না।
এই জাতীয় কোনও পোলিশ সিদ্ধান্তের বিষয়ে তার সরকারের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি ফ্রান্সের এলসিআই টিভিকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত প্রশ্নটি জিজ্ঞাসা করা হয়নি, তবে যদি আমাদের জিজ্ঞাসা করা হয় তবে আমরা পথ আটকাবো না’।

ইউক্রেনের কর্মকর্তারা কয়েকমাস ধরে পশ্চিমা মিত্রদের কাছে তাদের আধুনিক জার্মান তৈরি লেপার্ড ২ ট্যাঙ্ক সরবরাহ করার আহ্বান জানিয়ে আসছে। তবে জার্মানি সেগুলো পাঠাতে বা ন্যাটোভুক্ত অন্য দেশগুলোকে তা করার অনুমতি দেয়নি। বেশ কয়েকটি ন্যাটোভুক্ত দেশের কাছেই লেপার্ড ট্যাংক রয়েছে। তবে ইউক্রেনে তা পাঠাতে হলে জার্মানির অনুমতির প্রয়োজন। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা ইউক্রেনের জন্য এগুলোকে সবচেয়ে উপযুক্ত বলে মনে করেন।

জার্মানি লেপার্ড ২ ট্যাংক ইউক্রেনে পাঠাতে প্রবল চাপের মধ্যে রয়েছে। তবে চ্যান্সেলর ওলাফ শোলৎজের সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট পার্টি যুদ্ধে সামরিকভাবে জড়ানোর ব্যাপারে সন্দিহান এবং রাশিয়াকে উত্তেজিত করতে পারে এমন আকস্মিক পদক্ষেপের বিষয়ে সতর্ক।
যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনে আব্রামস ট্যাংক পাঠালে জার্মানিও লেপার্ড ২ ট্যাংক দিতে পারে বলে জানিয়েছে তারা। তবে আব্রামস ট্যাংকের রক্ষণাবেক্ষণ করা জটিল, এমন দাবিতে ট্যাংক পাঠাতে দ্বিধা করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় রবিবার দ্বিতীয় দিনের মতো বলেছে যে ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় জাপোরিঝঝিয়াতে তাদের অবস্থানের উন্নতি হয়েছে। যদিও ইউক্রেনের একজন সামরিক মুখপাত্র রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারককে বলেছেন, পরিস্থিতি ‘কঠিন’ কিন্তু স্থিতিশীল।

লেখক

Leave a comment
scroll to top