Close

বর্ষীয়ান সমাজকর্মী গ্রো ভাসু সাত বছর পুরোনো মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছেন

কোঝিকোড় মেডিকেল কলেজ পুলিশ শনিবার নীলম্বরে ৭ বছর পুরোনো মামলায় প্রাক্তন শ্রমিক নেতা এবং মানবাধিকার কর্মী গ্রো ভাসু-কে গ্রেপ্তার করেছে।

কোঝিকোড় মেডিকেল কলেজ পুলিশ শনিবার নীলম্বরে ৭ বছর পুরোনো মামলায় প্রাক্তন শ্রমিক নেতা এবং মানবাধিকার কর্মী গ্রো ভাসু-কে গ্রেপ্তার করেছে।

কোঝিকোড় মেডিকেল কলেজ পুলিশ শনিবার নীলম্বরে ৭ বছর পুরোনো মামলায় প্রাক্তন শ্রমিক নেতা এবং মানবাধিকার কর্মী এ. ভাসুকে (৯৪), যিনি জনপ্রিয়ভাবে গ্রো ভাসু নামে পরিচিত, গ্রেপ্তার করেছে। ২০১৬ সালে মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে একটি প্রতিবাদ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে এই মামলা দায়ের করা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।

২০১৬ সালের নভেম্বরে নীলম্বরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে বরানমালায় সিপিআই (মাওবাদী) এর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কুপ্পু দেবরাজ এবং দলের ডব্লিউজিএসজেডসি সদস্যা অজিথা নিহত হন। ঘটনার পরপরই ভাসু দাবি করেছিলেন যে এটি একটি ভুঁয়ো সংঘর্ষের ঘটনা এবং এর জন্য তিনি বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি করেছিলেন। প্রসঙ্গত, কোঝিকোড় মেডিকেল কলেজের মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য নিহতদের মরদেহ রাখা ছিল। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তিনি মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিলেন।

কুপ্পু দেবরাজ, যিনি ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)-র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন, মালাপ্পুরম জেলার নীলাম্বুরের কারুলাই বনে ২৪ নভেম্বর, ২০১৬ তারিখে থান্ডারবোল্ট কমান্ডোদের দ্বারা একটি কথিত এনকাউন্টারে অজিথার সাথে নিহত হন। বিভিন্ন আঞ্চলিক ও জাতীয় মানবাধিকার সংস্থার পাশাপাশি, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিআই), যারা কেরালায় বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট (এলডিএফ) জোট সরকারের শরিক, এনকাউন্টারটির নিন্দা করেছে এবং হত্যার জন্য কেরালা সরকারকে দায়ী করেছে।

৯৪ বছর বয়সী এই মানবাধিকার কর্মী দীর্ঘদিন অমীমাংসিত ওয়ারান্টের কারণে আদালতে হাজির হননি। ওয়ারেন্টটি কুন্নমঙ্গলাম জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত জারি করেছিল এবং ওয়ারান্ট কার্যকর করার অংশ হিসাবে গ্রেপ্তারী রেকর্ড করা হয়েছিল। পুলিশ যখন শনিবার সকালে ভাসুকে গ্রেপ্তার করে, তার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের অমীমাংসিত ওয়ারেন্ট উল্লেখ করে, ভাসু তার গণতান্ত্রিক প্রতিবাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের জন্য পুলিশের কাছে দাবি করে এবং থানা থেকে ‌‌জামিন নিতে অস্বীকার করেন।

মেডিকেল কলেজ পুলিশের মতে, ভাসু জামিনের জন্য আবেদন না করায় তাকে বিচারকের সামনে হাজির করা হয়েছিল এবং তাকে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়েছিল। পুলিশ যখন তাকে কুন্নামঙ্গলম আদালতে হাজির করেছিল, তখন ভাসু ম্যাজিস্ট্রেটকে জানিয়েছিলেন যে তিনি কোনও আইনজীবী ছাড়াই এই মামলায় নিজের প্রতিনিধিত্ব করবেন। আদালত তাকে দশ হাজার টাকা জরিমানা দেওয়ার নির্দেশ দিলে, ভাসু প্রত্যাখ্যান করে এবং বলেছিলেন, “বিচারবহির্ভূত এনকাউন্টারের সাথে জড়িত অফিসারদের বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত; যারা ভুয়া এনকাউন্টারের প্রতিবাদ ও শোক প্রকাশ করেছিল তাদের বিরুদ্ধে নয়।”

লেখক

Leave a comment
scroll to top