Close

হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের ঘটনায় যুদ্ধকে দুষলেন জেলেনস্কি

রাশিয়া কে নাম না করে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার জন্যে দুষলেন ইউক্রেনীয় রাষ্ট্রপতি ভোলোদিমির জেলেনস্কি, অন্যদিকে রাশিয়ার অভিযোগ কিয়েভের দিকে।

হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের ঘটনায় যুদ্ধকে দুষলেন জেলেনস্কি

ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের পূর্ব উপকণ্ঠে বুধবার একটি কিন্ডারগার্টেনের পাশে একটি হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডেনিস মোনাস্টিরস্কি সহ ১৮ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় তদন্তে নেমেছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। 

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদমির জেলেনস্কি বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছেন।এদিকে এ ঘটনার সঙ্গে ইউক্রেন সরাসরি রাশিয়ার জড়িত থাকার দাবি না করলেও প্রেসিডেন্ট ভলোদমির জেলেনস্কি বলেছেন, “এটি যুদ্ধের পরিণাম।”

দাভোসে অর্থনৈতিক ফোরামের বৈঠকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে জেলেনস্কি বলেন, যুদ্ধে কোনো দুর্ঘটনা ঘটে না। এগুলো সবই যুদ্ধের ফলাফল।তিনি আবারও উন্নত ও পশ্চিমাদের তৈরি ভারী ট্যাংক সরবরাহের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

জেলেনস্কি আরও বলেন, মুক্ত বিশ্ব চিন্তার জন্যে যে সময় ব্যয় করে, সন্ত্রাসী রাষ্ট্রগুলো সে সময় ব্যবহার করে হত্যার জন্য।

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এক বিবৃতিতে একে ‘হৃদয়বিদারক ট্রাজেডি’ হিসেবে উল্লেখ করে নিহত ইউক্রেনীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে সংস্কারক ও দেশপ্রেমিক হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

অন্যদিকে রাশিয়ার বার্তা সংস্থা তাস রিপোর্ট করেছে যে ইউক্রেনের রুশপন্থী রাজনৈতিক নেতা ভ্লাদিমির রোগভ অভিযোগ করেছেন যে কিয়েভ ষড়যন্ত্র করে মোনাস্টিরস্কিকে হত্যা করেছে।

রোগভ অভিযোগ করেন, “ইউক্রেনের রাজনৈতিক বাস্তবতা বিবেচনা করে, এটি একটি দুর্ঘটনা বলে মনে করা যায় না। আমার কাছে, এটি মোনাস্টিরস্কিকে নির্মূল করার মতো দেখায়। জেলেনস্কির শাসনামলে কী ঘটছে এবং কী চলছে সে সম্পর্কে তিনি খুব বেশি জানতেন। তিনি পদ্ধতিগতভাবে জেলেনস্কির কাছাকাছি ছিলেন না, তাই খুব সম্ভবত মোনাস্টিরস্কি একটি মৃত্যু মিছিলের পথ প্রশস্ত করে গেছেন, যা আমরা অদূর ভবিষ্যতে দেখতে পাব।”

এর আগেই অবশ্য রাশিয়ার কর্মকর্তারা এই ঘটনার সাথে নিজেদের সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেছিলেন। বরং তাঁরা দুর্ঘটনার পরেই আশংকা করেছিলেন যে জেলেনস্কি এই ঘটনা কে ন্যাটোর থেকে বেশি সাহায্য পাওয়ার জন্যে ব্যবহার করবে।

রাশিয়ান সামরিক বিশেষজ্ঞ ইউরি নুটভ নেজাভিসিমায়া গেজেটাকে বলেছেন, বর্তমান বাস্তবতা বিবেচনা করে, দুর্ঘটনার সবচেয়ে বাস্তবসম্মত কারণটি সরঞ্জামের ত্রুটি বলে মনে হচ্ছে। ইউক্রেনে প্রযুক্তিগত পরিষেবা অপর্যাপ্ত, এবং প্রায়শই পর্যাপ্ত খুচরা যন্ত্রাংশ থাকে না বা সেগুলি নকল পণ্য ব্যবহার করে তৈরি করা হয়। তবে নাশকতার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

বিশেষজ্ঞটি বিশ্বাস করেন যে রাশিয়া এই ঘটনার সাথে জড়িত ছিল না কারণ রাশিয়ান সামরিক বাহিনী এত দীর্ঘ পরিসরে ক্ষেপণাস্ত্র নিয়োগ করবে না এবং ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডের অভ্যন্তরে একটি নাশক বাহিনী প্রেরণ করা অগ্রহণযোগ্য হবে। তদুপরি, হেলিকপ্টারের রুট সম্পর্কে জ্ঞান, যা গোপন রাখা হয়েছিল, প্রয়োজন ছিল। যাইহোক, নুটভের মতে, কিয়েভ সরকার এই শুক্রবারের রামস্টেইন শীর্ষ সম্মেলনে নিজেদের জন্য আরও অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে এবং ন্যাটো থেকে নতুন বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পাশাপাশি ভারী ট্যাংক সরবরাহ পাওয়ার জন্য যা ঘটেছে তার জন্য রাশিয়াকে দোষারোপ করার চেষ্টা করতে পারে।

উল্লেখ্য, দুর্ঘটনার সময় ওই অঞ্চল অন্ধকার এবং কুয়াশাচ্ছন্ন ছিল। প্রাথমিক প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে, হেলিকপ্টারটি একটি আবাসিক ভবনের কাছে বিধ্বস্ত হওয়ার আগে কিন্ডারগার্টেনে আঘাত করেছিল।

লেখক

Leave a comment
scroll to top