Close

নিউজক্লিকের উপর আক্রমণ ভারতে তাবৎ সাংবাদিকতাকে কী বার্তা দিচ্ছে?

সম্প্রতি নয়া দিল্লিতে নিউজক্লিকের দফতরে হানা‌ দিয়েছে। সাংবাদিকদের উপর লাগু হয়েছে ইউএপিএ। এই ঘটনা তাবৎ সাংবাদিকতাকে কী বার্তা দিচ্ছে?

সম্প্রতি নয়া দিল্লিতে নিউজক্লিকের দফতরে হানা‌ দিয়েছে। সাংবাদিকদের উপর লাগু হয়েছে ইউএপিএ। এই ঘটনা তাবৎ সাংবাদিকতাকে কী বার্তা দিচ্ছে?

সম্প্রতি রাজধানী নয়া দিল্লীতে সংবাদ পোর্টাল নিউজক্লিকের দফতরে হানা দেয় দিল্লী পুলিশ। একসাথেই তল্লাশি চালানো হয় প্রায় ৩০টি স্থানে, জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় সংস্থাটির সম্পাদক, মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান থেকে শুরু করে সাংবাদিক, কর্মচারী, কার্টুনিস্ট, ডিজাইনার, মায় ফ্রিল্যান্স লেখকদের। দিল্লী পুলিশের হিসাবে ৪৬ জন কে জেরা করা হয়েছে আর সম্পাদক প্রবীর পুরকায়স্থ ও মানব সম্পদ বিভাগের প্রধান অমিত চক্রবর্তী কে ইউএপিএ আইনে গ্রেফতার করা হয়। নিউজক্লিকের দফতর সিল করে দেয় পুলিশ। নিউজক্লিকের সাংবাদিকদের উপর দিল্লী পুলিশের হামলার ঘটনা নিয়ে বিরোধী শিবির থেকে সাংবাদিক মহলের একাংশ নিন্দায় সরব হয়েছে যদিও, তবুও এই গোটা ঘটনা প্রক্রিয়ায় এক এমন ধারার রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন দেখা গেছে যার ফলে কিন্তু আগামী দিনে সাংবাদিকদের জীবিকার উপরেও বড় আঘাত নেমে আসতে পারে, সরকারের সেই রকম মতি হলে।

দিল্লী পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ আর তল্লাশির নামে নিউজক্লিকের সাংবাদিক থেকে শুরু করে ফ্রিল্যান্স লেখকদের মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, কমপিউটার ও অন্যান্য ডিজিটাল উপকরণ বাজেয়াপ্ত করেছে। দিল্লী পুলিশ জানিয়েছে যে এই সরঞ্জামগুলোর পুঙ্খানুুঙ্খ পরীক্ষার জন্যেই বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। তবে এইগুলো নেওয়ার সময় এদের মালিকদের কোনো ধরনের রসিদ বা উপকরণগুলোর হ্যাশ ডেটা দেওয়া হয়নি। এই হ্যাশ ডেটা আসলে একটি ডিজিট্যাল উপকরণে কী ও কত তথ্য আছে তার একটা সাংকেতিক নিদর্শন। যদি তদন্তের সময় কোনো ভাবে উপকরণগুলোর মধ্যে থাকা তথ্যে হেরফের ঘটানো হয় বা তথ্য বদল করার চেষ্টা হয় বা নতুন তথ্য ঢোকানো হয়, তাহলে হ্যাশ ডেটা দিয়ে তা ধরে ফেলা সম্ভব। কিন্তু যেহেতু এই সাংবাদিক ও অন্য কর্মীদের তাঁদের উপকরণের কোনো ধরনের হ্যাশ ডেটা না দেওয়ার ফলে সেগুলিতে যদি আগামী দিনে কোনো কারচুপি করা হয় তাহলে সেটা কিন্তু ধরা মুশকিল হবে। এই রকম কারচুপির ফলে কিন্তু একটি মামলার রায়কেও কায়দা করে প্রভাবিত করতে পারে তদন্তকারী সংস্থা।

প্রশ্ন হল, উঁচু স্তর থেকে যদি অনুমোদন না থাকে তাহলে কি পুলিশ নিজের থেকে কোনো বাজেয়াপ্ত ডিজিট্যাল সরঞ্জামে মজুত থাকা তথ্য বদলে দেওয়ার বা বিকৃত করার প্রচেষ্টা করবে? আর উঁচু স্তর থেকে—দিল্লী পুলিশ কেন্দ্রীয় গৃহ মন্ত্রণালয়ের অধীন—নির্দেশ যে আসতে পারে না, তা কিন্তু নয়। ২০১৮ সালে ভীমা কোরেগাঁও মামলায় অভিযুক্ত রোনা উইলসনের কমপিউটারে নাকি বাইরের থেকে ম্যালওয়্যার ঢোকানো হয়েছিল বলে এক পশ্চিমা সংস্থা অভিযোগ করেছিল। উল্লেখ জনক ব্যাপার হল যে উইলসনের কমপিউটারে সেই সময় কোনো এক “কমরেড এম” নামক ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী) নেতার চিঠি পাওয়া যায়, যাতে নাকি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কে হত্যা করার এক বিস্তারিত রূপরেখা ছিল। ফলে সেই চিঠি নিয়েও বিতর্ক তৈরি হল। আগামী দিনে নিউজক্লিকের সাংবাদিকদের কমপিউটার থেকে যে দিল্লী পুলিশ চীনের তথাকথিত ফান্ডিং এর রসিদ পাবে না সে কথা কে হলফ করে বলতে পারে?

বর্তমান জীবনে মোবাইল, ল্যাপটপ, প্রভৃতি এক শ্রেণীর মানুষের কাছে বিলাসিতা নয় বরং জীবিকা আয় করার উপকরণ। হঠাৎ করে তদন্তের নামে একটি সংস্থার সকল কর্মচারীর ফোন ও ল্যাপটপ কেড়ে নিলে তাঁদের দৈনিক জীবনে ও জীবিকার উপর এর প্রভাব পড়ে। ফলে একটি সংবাদ পোর্টাল যেমন প্রতিদিন কনটেন্ট তৈরি না করতে পারলে ব্যবসায় টিকতে পারবে না, তেমনি ফোন ছাড়া আর ল্যাপটপ ছাড়া অধিকাংশ সাংবাদিক তাঁদের কাজ করতে পারবেন না। সাংবাদিকেরা কাজ করতে না পারা মানেই কিন্তু দেশের সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ হয়। কিন্তু শুধুই সাংবাদিকতা নয়, কেউ যদি নিউজক্লিকের সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় ভয় পেয়ে অন্য চাকরি খুঁজতে চান তার জন্যেও ল্যাপটপ আর ফোন দরকার। যদি কারুর আর্থিক সঙ্গতি থাকে এবং তিনি নতুন ফোন বা ল্যাপটপ কিনে আবার কাজ করা শুরু করতে চান, সেখানেও অনলাইনে কেনাকাটা করার ক্ষেত্রে ফোন ছাড়া উপায় নেই, কারণ মূলত ফোনেই মানুষ ওটিপি পান লেনদেন করার। এ ছাড়াও সাংবাদিকদের জরুরি কথাবার্তার জন্যে, ইন্টারভিউ আর সোর্সের সাথে যোগাযোগের জন্যে এই সরঞ্জামগুলো একান্ত দরকার। সেই ক্ষেত্রে বিনা কারণে সব সাংবাদিক ও ফ্রিল্যান্স লেখকদের ডিজিট্যাল সরঞ্জাম বাজেয়াপ্ত হলে তাঁদের রুজিরুটিতে আঘাত লাগে, তাঁদের পরিবারের স্বার্থেও ঘা লাগে।

নিউজক্লিকের সাংবাদিকদের উপর রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের ঘটনার সাথে সাথে তাঁদের জীবিকা ধ্বংস করার যে প্রকল্প সরকার নিয়েছে সেটা নিয়েও সাংবাদিক মহলকেই সোচ্চার হতে হবে। ইতিমধ্যে সুপ্রিম কোর্টেও এই নিয়ে মামলার তোরজোড় চলছে। সাংবাদিকদের হয়রানি করার জন্যে তাঁদের ফোন ও ল্যাপটপ বাজেয়াপ্ত করা বন্ধ করার দাবিও উঠেছে, কারণ এগুলো ছাড়া বর্তমানে সাংবাদিকদের ও নয়া জমানার সংবাদ সংস্থাগুলোর পক্ষে চলা অসম্ভব। দেশের সরকার যখন পেটের ভাত দিতে অপারগ তখন সাংবাদিকদের জন্যে কিল মারার গোঁসাই হওয়ার দরকারও নেই।

লেখক

  • সম্পাদক

    ইস্ট পোস্ট বাংলার সম্পাদকীয় কলামে এই পত্রিকার সম্পাদকীয় মতামত প্রকাশিত হয়।

ইস্ট পোস্ট বাংলার সম্পাদকীয় কলামে এই পত্রিকার সম্পাদকীয় মতামত প্রকাশিত হয়।

Leave a comment
scroll to top