Close

কঙ্গো-তে বিক্ষোভে সেনা সক্রিয়তায় কয়েক ডজন মানুষ নিহত হয়েছে

কঙ্গো-র গোমায় জাতিপুঞ্জের মনুস্কো শান্তিরক্ষা মিশনের বিরুদ্ধে একটি বিক্ষোভে বুধবার কঙ্গোলিজ সৈন্যরা সহিংসভাবে একটি বিক্ষোভ দমন করেছে।

কঙ্গো-র গোমায় জাতিপুঞ্জের মনুস্কো শান্তিরক্ষা মিশনের বিরুদ্ধে একটি বিক্ষোভে বুধবার কঙ্গোলিজ সৈন্যরা সহিংসভাবে একটি বিক্ষোভ দমন করেছে।

গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গো-র সরকার বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করেছে যে গোমায় জাতিপুঞ্জের মনুস্কো শান্তিরক্ষা মিশনের বিরুদ্ধে বুধবার কঙ্গোলিজ সৈন্যরা সহিংসভাবে একটি বিক্ষোভ দমন করলে কমপক্ষে ৪০ জন নিহত এবং আরও ৫৬ জন আহত হয়েছে। কিনশাসার সরকারী বিবৃতিতে মৃতের সংখ্যা ৪৩ রাখা হয়েছে, যদিও জাতিপুঞ্জের মানবাধিকার অফিস দাবি করেছে যে মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে এমন তথ্য রয়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আরও ১৫৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সরকার এ ঘটনায় সামরিক তদন্ত শুরু করেছে। বেসামরিক পোশাকে একজন পুলিশ সদস্যকে বেঁধে মারধর করার ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার পরে বিক্ষোভ ভাঙতে সেনাদের পাঠানো হয়েছিল বলে জানা গেছে। রয়টার্স ফুটেজের উৎস যাচাই করতে পারেনি, এবং বিক্ষোভের আয়োজকরা অংশগ্রহণকারীদের শান্তিপূর্ণ থাকার আহ্বান জানিয়েছিলেন। নৃশংস দমন-পীড়নে আহতদের মধ্যে অনেকেই বিক্ষোভের পর গুরুতর ছুরিকাঘাত ও বন্দুকের গুলিতে আহত হয়ে আন্তর্জাতিক রেড ক্রস ক্লিনিকে উপস্থিত হয়েছেন, শাখা পরিচালক অ্যান-সিলভি লিন্ডার শুক্রবার রয়টার্সকে জানিয়েছেন, “তাদের কয়েকজন ক্লিনিকে পৌঁছালে তাকে তখন মৃত ঘোষণা কর হয়,” তিনি যোগ করেছেন, যখন সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ফুটেজে দেখা যাচ্ছে যে সৈন্যরা গোমা দিয়ে চলা একটি ট্রাক কনভয়ে রাস্তা থেকে মৃতদেহ তুলে নিচ্ছে।

MONUSCO গণহত্যার পরে বিক্ষোভকারীদের অধিকারকে সম্মান করতে উৎসাহিত করে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে কঙ্গো সরকারকে জানিয়েছে, “একটি দ্রুত এবং স্বাধীন তদন্ত পরিচালনা করতে এবং… আটক বিক্ষোভকারীদের সাথে মানবিক আচরণ করতে”৷ মিশন বলেছে যে এটি সহিংসতার হুমকিতে উদ্বিগ্ন রয়েছে এবং যারা মারা গেছে তাদের জন্য সমবেদনা প্রকাশ করেছে। গত বছর MONUSCO-এর বিরুদ্ধে একই রকম একটি বিক্ষোভ, (যা স্থানীয়রা দাবি করে যে তাদের কয়েক বছরের মিলিশিয়া সহিংসতার বিরুদ্ধে রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে) এতে পেট্রোল বোমা ভাংচুর এবং আন্তর্জাতিক মিশনের ভবনে অগ্নিসংযোগের ফলে জাতিপুঞ্জের তিন শান্তিরক্ষীসহ অন্তত ১৫ জন নিহত হয়েছে, কারণ সুসজ্জিত জাতিপুঞ্জের সৈন্যরা পাথর হাতে শতাধিক বেসামরিক নাগরিকের বিরুদ্ধে এগিয়ে এসেছিল।

সেই প্রতিবাদ গোমায় শুরু হয়ে বুটেম্বোতে ছড়িয়ে পড়ে। রয়টার্সের একজন প্রতিবেদক ব্যক্তিগতভাবে জানিয়েছে জাতিপুঞ্জের সৈন্যরা গোমায় দুই বিক্ষোভকারীকে গুলি করে হত্যা করেছে, যদিও শান্তিরক্ষীদের তাদের ভিড় নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা টিয়ার গ্যাস এবং সতর্কীকরণ শটের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। ২০২২ সালের বিক্ষোভের পরে বিক্ষোভকারীরা সৈন্যদের বাড়িতে আক্রমণ করায় কিছু জাতিপুঞ্জ কর্মীকে সামরিক সুরক্ষায় শিবিরে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। কঙ্গোলিজ শাসক দলের যুব মিশন তার অনুভূত অকার্যকরতার কারণে জাতিপুঞ্জকে দেশ ত্যাগ করার দাবি জানিয়েছে। ২০২১ সালের নভেম্বর থেকে MONUSCO তাদের সক্রিয়তা কিছুটা কমিয়েছে, যখন এটি সারা দেশে ১২,০০০ টিরও বেশি সৈন্য এবং ১,৬০০-র পুলিশ মোতায়েন করেছিল। কিন্তু মিলিশিয়া গোষ্ঠীদের কেন্দ্র করে উত্তেজনা রয়ে গেছে। কিছু সন্ত্রাসী গোষ্ঠী যেমন ইসলামিক স্টেটের (আইএস, পূর্বে আইএসআইএস) সাথে যুক্ত থাকা সত্ত্বেও তাদের প্রতিহত করার প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক উপস্থিতি বেসামরিকদের আতঙ্কিত করে চলেছে।

লেখক

  • ইন্দ্রাণী চক্রবর্তী

    ইন্দ্রাণী চক্রবর্তী কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর সাংবাদিকতার ছাত্রী ও ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক, যিনি শ্রম, কৃষি ও রাজনীতি নিয়ে রিপোর্টিং করেন।

    View all posts

ইন্দ্রাণী চক্রবর্তী কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর সাংবাদিকতার ছাত্রী ও ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক, যিনি শ্রম, কৃষি ও রাজনীতি নিয়ে রিপোর্টিং করেন।

Leave a comment
scroll to top