Close

ইকুয়েডরে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে হত্যা করা হয়েছে; গ্রেপ্তার ছয়

ইকুয়েডরে রাষ্ট্রপতি প্রার্থী ফার্নান্দো ভিলাভিসেনসিওকে বুধবার কুইটোতে একটি প্রচারাভিযানের সময় গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

ইকুয়েডরে রাষ্ট্রপতি প্রার্থী ফার্নান্দো ভিলাভিসেনসিওকে বুধবার কুইটোতে একটি প্রচারাভিযানের সময় গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

ইকুয়েডরে রাষ্ট্রপতি প্রার্থী ফার্নান্দো ভিলাভিসেনসিওকে বুধবার কুইটোতে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। কর্মকর্তারা এই হত্যার পিছনে “সংগঠিত অপরাধ” থাকতে পারে বলে পরামর্শ দিয়েছেন। ৫৯ বছর বয়সী রাজনীতিবিদ ইকুয়েডরের রাজধানীতে একটি রাজনৈতিক সমাবেশ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য প্রস্তুত হওয়ার সময় ঘটনাটি ঘটেছে। তার প্রচার উপদেষ্টা কার্লোস ফিগুয়েরো স্থানীয় মিডিয়াকে তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি উল্লেখ করেছেন যে তাকে তিনবার মাথায় গুলি করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডটি ইকুয়েডরে পরবর্তী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের মাত্র দশ দিন আগে ঘটেছিল। এই নির্বাচনে ভিলাভিসেনসিও আরও সাতজন প্রার্থীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে প্রস্তুত ছিলেন। ভিলাভিসেনসিও একজন প্রাক্তন আইন প্রণেতা এবং একজন সোচ্চার দুর্নীতিবিরোধী কর্মী। তিনি মৃত্যুর সময় পর্যন্ত ৭.৫% ভোট পেয়েছিলেন। স্থানীয় মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে তিনি পঞ্চম স্থানে ছিলেন।


প্রেসিডেন্ট গুইলারমো ল্যাসো সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা এক বিবৃতিতে এই হামলার বিষয়ে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, “প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ফার্নান্দো ভিলাভিসেনসিওর হত্যাকাণ্ডে তিনি ক্ষুব্ধ এবং মর্মাহত।” তিনি সংযোজন করেছেন, “সংগঠিত অপরাধের জল অনেক দূর গড়িয়ে গিয়েছে।” তিনি বলেছেন যে এই হত্যার সমাধান করা হবে। হামলার মুহূর্তটি দেখানোর জন্য ফুটেজগুলি অনলাইনে প্রচারিত হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, কুইটোতে সমাবেশের পরে নিরাপত্তারক্ষীরা ভিলাভিসেনসিওকে একটি গাড়িতে নিয়ে যাওয়ার সময় এক ডজনেরও বেশি গুলির শব্দ শোনা গেছে। ফিগুয়েরো বলেন, হামলার পরপরই পরীক্ষা করা হলে প্রার্থীর কোনো অত্যাবশ্যক লক্ষণ ছিল না এবং তাকে নিকটবর্তী হাসপাতালে মৃত ঘোষণা করা হয়।

ইকুয়েডরের অ্যাটর্নি জেনারেলের মতে , এই ঘটনায় একজন বেনামী সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। কিন্তু পরে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাথে “গুলি বিনিময়ের” সময় আঘাতের কারণে তিনি মারা যান৷ এ ঘটনায় দুই কর্মকর্তা ও স্থানীয় অফিসের একজন প্রার্থীসহ আরও নয়জন আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাকে সন্ত্রাসবাদের কাজ বলে বর্ণনা করেছে। প্রশাসন তদন্ত শুরু করার অঙ্গীকার করেছে। প্রেসিডেন্ট লাসো উল্লেখ করেছেন যে তিনি বুধবার রাতে এই ঘটনা নিয়ে আলোচনার জন্য শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের একটি জরুরি বৈঠক ডেকেছেন। তিনি এর আগে সংগঠিত অপরাধী চক্র এবং মাদক পাচারকারীদের নিন্দা করেছেন‌। ইকুয়েডরে সাম্প্রতিক সহিংসতার জন্য তাদের দায়ী করেছেন‌। যা প্রচারকার্যের জন্য একটি প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ইকুয়েডরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ফার্নান্দো ভিলাভিসেনসিও হত্যার অভিযোগে পুলিশ ছয়জনকে হেফাজতে নিয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জোসে সেরানো বৃহস্পতিবার একটি প্রেস ব্রিফিংয়ে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি উল্লেখ করেছেন যে কর্তৃপক্ষ এখনও এই হত্যার মূল পরিকল্পনাকারীর সন্ধান করছে। ছয় সন্দেহভাজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে আন্দ্রেস এম., জোসে এন., এডি জি., ক্যামিলো আর., জুলস সি. এবং জোন রদ্রিগেজ, সমস্ত কলম্বিয়ান নাগরিকদের সংগঠিত অপরাধী গোষ্ঠীর সাথে সম্পর্ক রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের প্রাপ্ত একটি পুলিশ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে কুইটোতে একটি বাড়িতে অভিযানের সময় পুরুষদের গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। তিনটি হাতবোমা, একটি সাবমেশিনগান, বেশ কয়েকটি পিস্তল এবং একটি রাইফেল সহ গোপন আস্তানায় প্রচুর অস্ত্র পাওয়া গেছে বলে সেরানো সংযোজন করেছেন। ইকুয়েডরে অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয় জানিয়েছে, ওই দিন পরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় হামলাকারীর নাম প্রকাশ করা হয়নি।

কর্মকর্তারা বৃহস্পতিবার হত্যার বিষয়ে অতিরিক্ত বিবরণ প্রকাশ করেছেন, রাষ্ট্রপতি গুইলারমো ল্যাসো বলেছেন যে একজন বন্দুকধারী ঘটনাস্থল থেকে পালানোর চেষ্টা করার সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছিল। তবে গ্রেনেডটি বিষ্ফোরিত হয়নি। অফিসাররা পরে এটি একটি নিয়ন্ত্রিত সেটিংয়ে বিস্ফোরণ ঘটায়। ওই এলাকায় একটি হ্যান্ডগানও পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন তদন্তকারীরা। ইকুয়েডর সরকার কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা এবং জরুরি অবস্থার মাধ্যমে হত্যাকাণ্ডের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। পরবর্তী রাষ্ট্রপতির নির্বাচনের সময়কালের জন্য সারা দেশে পুলিশ এবং সৈন্য মোতায়েন করেছে, যা ২০শে আগস্ট থেকে শুরু হতে চলেছে। নির্বাচন নির্ধারিত সময় অনুযায়ী চলবে। ইকুয়েডরে নির্বাচনী কাউন্সিলের প্রধান ডায়ানা আতামাইন্ট বলেছেন, তারিখটি “অপরিবর্তনীয়”।

“ইকুয়েডরের জনগণের ভোট হবে মাফিয়া এবং তাদের সহযোগীদের সর্বোত্তম জবাব,” স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যোগ করেছেন। প্রেসিডেন্ট ল্যাসোর কার্যালয় বলেছে যে কুইটো সহায়তার জন্য মার্কিন ফেডারেল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের কাছে পৌঁছেছে এবং এফবিআইয়ের একটি প্রতিনিধি দল আগামী দিনে কোনো এক সময়ে ইকুয়েডরে আসবে। হোয়াইট হাউস ভিলাভিসেনসিওর হত্যাকাণ্ডকে “খুবই মর্মান্তিক” বলে মনে করেছে, যেখানে জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র জন কিরবি “পূর্ণ, সম্পূর্ণ এবং স্বচ্ছ তদন্ত” করার আহ্বান জানিয়েছেন। এই ঘটনাটি ইকুয়েডরের ইতিহাসে রাষ্ট্রপতি পদের প্রতিদ্বন্দ্বীর প্রথম হত্যাকাণ্ডকে চিহ্নিত করেছে। যা অন্য বেশ কয়েকজন প্রার্থীকে তাদের প্রচারকার্য স্থগিত করতে বাধ্য করেছে।

লেখক

Leave a comment
scroll to top