Close

কিভকে বিশ্বাস করা যায় না, শি-জেলেনস্কির কথাবার্তা নিয়ে সংশয়ী রাশিয়া

শি-জেলেনস্কি সংলাপের বিষয়ে মস্কো তার সংশয় প্রকাশ করেছে। মস্কো বলেছে কিভকে বিশ্বাস করা যায় না এবং শান্তির আহ্বানে ইউক্রেন সাড়া দেবে না।

ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির জেলেনস্কির সাথে চীনা রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের টেলিফোনিক সংলাপের বিষয়ে মস্কো তার সংশয় প্রকাশ করেছে। যেখানে শি জোর দিয়েছিলেন যে আলোচনাই ইউক্রেন সংকট থেকে বেরিয়ে আসার একমাত্র কার্যকর উপায়।

রাশিয়ান সংবাদ সংস্থা TASS সূত্রে জানা গেছে, শি-জেলেনস্কি কথোপকথনের প্রসঙ্গে রাশিয়ার বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা ২৬শে এপ্রিল, বুধবার, বলেছেন যে, শান্তির আহ্বানে ইউক্রেন সাড়া দেবে না।

বুধবার, উক্ত টেলিফোনিক আলোচনায় শি মন্তব্য করেন যে চীন ইউক্রেন সংকটের জন্য দায়ীও নয়, আবার নিরব দর্শক হিসেবে বসে থাকতেও পারে না, এবং আগুনে ঘিও ঢালবে না। পারস্পরিক আলোচনার উপর জোর দেন শি এবং জেলেনস্কিকে জানান যে বেজিং রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করবে।

যাইহোক, শান্তির প্রতি ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতির প্রতিশ্রুতি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন জাখারোভা। “আলোচনা প্রক্রিয়া শুরু করার বিষয়ে চীনের ইচ্ছার বিষয়টি খেয়াল করেছি। ২৪শে ফেব্রুয়ারি, চীনের বিদেশ মন্ত্রক প্রস্তাবিত অবস্থানের সাথে আমাদের মৌলিক চাহিদাগুলির মিল রয়েছে,” শি-জেলেনস্কি সংলাপের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন।

জাখারোভা আরও বলেন, “এখনও পর্যন্ত, ইউক্রেন সংকটের একটি রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক সমাধানের সমস্ত যুক্তিসঙ্গত উদ্যোগ প্রত্যাখ্যান করছে কিভ সরকার”। তিনি এর জন্য মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা বাহিনীকে দায়ী করেন, তারা ‘দুর্বৃত্ত’ সরকারকে ব্যাপক সামরিক সহায়তার মাধ্যমে সংঘাতে ইন্ধন জোগাচ্ছে।

“তাদের (পশ্চিমা শক্তির) নিজস্ব স্বীকারোক্তি অনুসারে, শুধুমাত্র সময়ের সুবিধে এবং আক্রমণাত্মক ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য মিনস্ক চুক্তির প্রয়োজন ছিল। ২০২২ সালের বসন্তে, তারা হঠাৎ করে শান্তি চুক্তি ভঙ্গ করে, যে চুক্তি প্রায় হতে চলেছিল। এমনকি রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে যে কোনও আলোচনা নিষিদ্ধ করে এমন একটি আইনে স্বাক্ষর করেছিলেন জেলেনস্কি। যার আসল মানে দাঁড়ায়, যে ওয়াশিংটনের পুত্তলিদের শান্তির আহ্বানে (sic) সাড়া দেওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ,” জাখারোভাকে উদ্ধৃত করেছে রুশ সংবাদ মাধ্যম TASS।

“তাইওয়ান” প্রশ্নে বিতর্কের উস্কানি দিয়ে জাখারোভা দাবি করেন যে ইউক্রেনের উগ্র-ডানপন্থী শক্তি “এক চীন” নীতিকে বাস্তবসম্মত হিসাবে স্বীকৃতি দেয় না তবে এটিকে ব্যবহার করে বিভ্রান্ত করার জন্য। তিনি উল্লেখ করেন যে ইউক্রেনে কমিউনিস্ট দল এবং মার্কসবাদী মতাদর্শ নিষিদ্ধ করা হয়েছে, যা ইউক্রেনের সরকারকে গভীরভাবে কমিউনিস্ট বিরোধী করে তুলেছে।

জাখারোভা আরো উল্লেখ করেন যে ইউক্রেনের ভারখোভনা রাদা-র (সংসদ) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির প্রধান আলেকজান্ডার মেরেজকো সম্প্রতি দাবি করেছেন যে চীনের অংশ হিসাবে তাইওয়ানকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি প্রদান “একটি কমিউনিস্ট ভুল ধারণা”।

চীন এবং রাশিয়া দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্ব পরিস্থিতিতে তাদের জোটকে শক্তিশালী করেছে। এবং মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা ব্লক চীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে যে তারা নাকি মস্কোকে অত্যাধুনিক অস্ত্র দিয়ে সাহায্য করছে। বেজিং দৃঢ়ভাবে এই দাবি অস্বীকার করেছে। শি-জেলেনস্কি সংলাপের সময়, চীনা রাষ্ট্রপতি জোর দিয়েছিলেন যে চীন ইউক্রেনে মানুষিক সহায়তা অব্যাহত রাখবে এবং শান্তিপূর্ণভাবে সংঘাতের সমাধান এবং স্বাভাবিকতা পুনরুদ্ধারে প্রধান ভূমিকা পালন করবে। যা স্পষ্টতই পশ্চিমা স্বার্থের বিরোধী।

লেখক

Leave a comment
scroll to top