Close

লিভ-ইন অধার্মিক, যুগলকে সুরক্ষা দিতে নারাজ আদালত

লিভ-ইন হারাম ইসলামে তাই ভিন ধর্মী যুগলকে সুরক্ষা দিতে নারাজ এলাহাবাদ হাইকোর্ট। তাছাড়াও এই লিভ-ইন সম্পর্কে মত নেই মেয়ের পরিবারের।

লিভ-ইন মুসলমানদের জন্য ‘হারাম’ তাই ভিন্নধর্মী সঙ্গীকে সুরক্ষা দিতে ‘অপারগ’ এলাহাবাদ হাইকোর্ট। জানা গেছে ওই যুগলের মধ্যে যুবক ইসলাম ধর্মাবলম্বী এবং তরুণী হিন্দু ধর্মাবলম্বী। এক জনের বয়স ৩০ এবং অন্য জনের বয়স ২৯ বছর। এই দুই ভিন্নধর্মী যুগল একত্রবাসে ছিলেন। কিন্তু এই সম্পর্কে পারিবারিক এবং সামাজিক বাধা আসে। এমনকি, তরুণীর পরিবারের তরফে যুবকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। সুরক্ষা চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন দুইজনেই। কিন্তু এই মামলায় হস্তক্ষেপ করতে চাইল না এলাহাবাদ হাই কোর্ট। আদালতের পর্যবেক্ষণ, সুপ্রিম কোর্ট লিভ-ইন সম্পর্ককে উৎসাহ দেয় না।

মামলাটির শুনানি হয় বিচারপতি সঙ্গীতা চন্দ্র এবং বিচারপতি নরেন্দ্রকুমার জোহারির ডিভিশন বেঞ্চে। আদালতের পর্যবেক্ষণ, দেশের আইন সব সময় বিয়ের পক্ষে। সুপ্রিম কোর্টও লিভ-ইন সম্পর্ককে উৎসাহ প্রদান করে না। লিভ-ইন সম্পর্ককে ‘সুরক্ষিত’ রাখার কোনও নির্দেশও শীর্ষ আদালতের তরফে পাওয়া যায়নি। তাই সংশ্লিষ্ট মামলায় আদালতের কিছুই করণীয় নেই বলে জানিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ।

এই মামলা সম্পর্কে হাই কোর্ট জানতে পারে ওই যুগলের সম্পর্কে মেয়েটির পরিবারের মত নেই। তাঁর মা যুবকের বিরুদ্ধে থানায় এফআইআর করেছেন। অন্য দিকে, যুগলের দাবি, তাঁরা দুইজনেই প্রাপ্তবয়স্ক। একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত তাঁদের নিজেদের। এতে হস্তক্ষেপের অধিকার কারও নেই। কিন্তু তার পরও পুলিশ তাঁদের হেনস্থা করছে। আদালত দুই পক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য শোনার পর মন্তব্য করে, মামলাকারীরা দাবি করেননি যে তাঁরা বিবাহিত।
তাঁরা বৈবাহিক সম্পর্ক সুরক্ষিত রাখার আবেদন করেননি। তাঁরা দাবি করছেন যে, প্রাপ্তবয়স্ক হিসাবে নিজেদের পছন্দমতো মানুষের সঙ্গে থাকার অধিকার রয়েছে। কিন্তু লিভ-ইন সম্পর্কে সুরক্ষা নিয়ে দেশের শীর্ষ আদালতের নির্দিষ্ট কোনও নির্দেশ নেই। এর পরেই আদালত মন্তব্য করে যে, ‘‘তাছাড়া মুসলমান ধর্মে বিয়ের আগে যৌনতা, চুম্বন, শারীরিক স্পর্শ নিষিদ্ধ। বিয়ের আগে এগুলো করা মুসলমান ধর্মে ‘হারাম’। কোরানে এ বিষয়ে উল্লেখ আছে।’’ তাই এই বিষয়ে আদালত সুরক্ষা দিতে পারবেনা বলে জানিয়েছে। তবে শেষে হাই কোর্ট জানিয়েছে চাইলে এ নিয়ে পাল্টা এফআইআর করতে পারেন মামলাকারী যুগল। কিন্তু নিয়ে রিট পিটিশন গ্রহণযোগ্য নয় বলেই জানা গেছে।

লেখক

Leave a comment
scroll to top