Close

ফ্রান্স শিক্ষা মন্ত্রণালয় স্কুলে ইসলামিক পোশাক নিষিদ্ধ করেছে

ফ্রান্স-এ বিদ্যালয়ে ইসলামিক পোশাক পরিধান নিষিদ্ধ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এটি শিক্ষার ধর্মনিরপেক্ষতা আইনের বিরুদ্ধে বলেছেন তারা।

ফ্রান্স-এ বিদ্যালয়ে ইসলামিক পোশাক পরিধান নিষিদ্ধ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এটি শিক্ষার ধর্মনিরপেক্ষতা আইনের বিরুদ্ধে বলেছেন তারা।

ফ্রান্স-এর রাষ্ট্রীয় বিদ্যালয়ে সেপ্টেম্বরের শুরু থেকে স্কুলছাত্রীদের আবায়া যা একটি পূর্ণ দৈর্ঘ্যের ইসলামিক পোশাক, পরিধান নিষিদ্ধ করা হবে। রবিবার ফ্রান্স-এর শিক্ষামন্ত্রী ঘোষণা করেছেন যে পোশাকটি ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষার আইন লঙ্ঘন করে। “স্কুলে আবায়া পরা আর সম্ভব হবে না,” গ্যাব্রিয়েল আটাল টিভি চ্যানেল টিএফ১-কে বলেছেন।

“ধর্মনিরপেক্ষতা মানে স্কুলের মাধ্যমে নিজেকে মুক্ত করার স্বাধীনতা,” এবং ক্লাসে ইসলামিক পোশাক পরা একটি “ধর্মনিরপেক্ষ বাতাবরণ” হিসাবে স্কুলের মর্যাদাকে ক্ষুন্ন করে, শিক্ষামন্ত্রী যুক্তি দিয়েছিলেন। “আপনি যখন একটি শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ করেন, তখনই আপনি কেবল তাদের দেখে একজন ছাত্রের ধর্ম সনাক্ত করতে সক্ষম হবেন না।”

বিষয়টি নিয়ে ফ্রান্স-এ দীর্ঘদিন ধরে বিতর্ক হয়েছে, দাবি করা হয়েছে যে স্কুলে পরা আবায়া শিক্ষক ও অভিভাবকদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি করে। ২০০৪ সালের একটি ফরাসি আইন এমন পোশাকের ধরণকে নিষিদ্ধ করে যা স্কুলগুলিতে “প্রকাশ্যভাবে ধর্মীয় অনুষঙ্গ দেখায়”, যেমন ইসলামিক হেডস্কার্ফ বা ইহুদি কিপা অথবা খ্রিস্টানদের বড় ক্রুশ। যদিও ফরাসি রাজনীতিবিদদের একাংশ, বিশেষত বামপন্থীরা সরকারের এই পদক্ষেপকে বৈসম্যমূলক সিদ্ধান্ত হিসেবেই দেখছে।

নিষেধাজ্ঞায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। রক্ষণশীল লেস রিপাবলিকান (দ্য রিপাবলিকান) পার্টির নেতা এরিক সিওটি এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন। “আমরা বারবার আমাদের স্কুল থেকে আবায়া নিষিদ্ধ করার আহ্বান জানিয়েছি,” তিনি X (ওরফে টুইটার)-এ লিখেছেন। বামপন্থী রাজনীতিবিদরা এই পদক্ষেপকে “ইসলামোফোবিক” বলে নিন্দা করেছেন। লা ফ্রান্স ইনসুমিজ (ফ্রান্স আনবোড) পার্টির একজন আইন প্রণেতা ক্লেমেন্টাইন অটাইন এটিকে “অসাংবিধানিক” বলে অভিহিত করেছেন।

লেখক

Leave a comment
scroll to top