Close

সাফাইয়ের হাল খারাপ, একশোর বেশি অভিযোগ পৌরনিগম-এর কাছে

পৌরনিগম-এর কাছে সাফাই নিয়ে শতাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে। বর্ষাকালে ডেঙ্গি নিয়ে চিন্তিত কলকাতা পৌরনিগম সাফাই নিয়ে নিচ্ছে পদক্ষেপ।

Image by Hans from Pixabay

নাগরিকদের সুষ্ঠু ভাবে পুর পরিষেবা দিতে নির্দিষ্ট হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর চালু করেছিল কলকাতা পৌরসনিগম। ‘শো টু মেয়র’ নামে ওই নম্বর (৮৩৩৫৯৯৯১১১) চালু হয়েছে গত বছরের জুন মাসে। কলকাতা পৌরনিগম সূত্রের খবর, এই নম্বর চালু হওয়ার পর থেকে এখনও পর্যন্ত পুরসভার কাছে সাফাই সংক্রান্ত ১২৭টি অভিযোগ জমা পড়েছে। জানা গিয়েছে, শহরে কোথাও আবর্জনা পড়ে থাকলে বা ভ্যাট পরিষ্কার না থাকলে তার ছবি-সহ বিস্তারিত বিবরণ নাগরিকেরা সরাসরি পাঠাচ্ছেন পৌরনিগমের ওই নম্বরে। বর্ষার শুরুতে মশাবাহিত রোগ, মূলত ডেঙ্গি নিয়ে বিভিন্ন পুরসভার চিন্তার উদ্রেক হওয়ায় এই হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর শহর পরিচ্ছন্ন রাখার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে মনে করছেন নাগরিকদের অনেকে।

পুরসভার কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের এক শীর্ষ আধিকারিক সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘‘হোয়াটসঅ্যাপে আসা প্রতিটি অভিযোগ গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কলকাতা শহরকে আবর্জনামুক্ত করতে বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। শহর পরিচ্ছন্ন রাখতে পুরসভার পাশাপাশি, প্রত্যেক নাগরিককে এগিয়ে আসতে হবে। নির্দিষ্ট হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে সাধারণ মানুষের থেকে পাওয়া অভিযোগের পুরোটাই নিষ্পত্তি করা হয়েছে।’’

বর্ষা শুরু হতেই মশাবাহিত রোগ নিয়ে চিন্তা বাড়ছে। পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের আধিকারিকেরা জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরে জমে থাকা আবর্জনায় জল জমলে সেখানে মশার বংশবিস্তারের আশঙ্কা থাকে। তাই বর্ষায় শহরকে পরিচ্ছন্ন ও আবর্জনামুক্ত রাখার দিকেই জোর দিতে চাইছেন পুর কর্তৃপক্ষ। এ ক্ষেত্রে পুরসভার হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে মনে করছেন পুর আধিকারিকেরাও।

পৌরনিগম সূত্রের খবর, ওই হোয়াটসঅ্যাপে কেউ অভিযোগ জানালে প্রথমে পুরসভার তরফে অভিযোগকারীকে ফোন করে বিস্তারিত জেনে নেওয়া হচ্ছে। এরপরে পুরসভার কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কর্মীরা সেই আবর্জনা পরিষ্কার করে আসছেন। পুরসভা সূত্রের খবর, হোয়াটসঅ্যাপে আসা অভিযোগগুলির সমাধান না-করা পর্যন্ত এ সম্পর্কিত বিস্তারিত নথি পুর আধিকারিকদের খাতায় লিখেরাখতে হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, কলকাতার রাস্তায় ময়লা ফেললেই জরিমানার নিদান রয়েছে। পৌরনিগমের কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ সূত্রের খবর, প্রথম বার রাস্তায় আবর্জনা ফেলে ধরা পড়লে অভিযুক্তকে দিতে হয় ৫২৫ টাকা। দ্বিতীয় বারের জরিমানা ৭৩৫ টাকা। তার পরেও সেই একই কাজ বারংবির চালিয়ে গেলে প্রতি বার ১০৩৫ টাকাকরে জরিমানা দিতে হবে। সূত্রের খবর, শহরের একাধিক এলাকায় ইতিমধ্যেই এই জরিমানা আদায় করা হয়েছে। পৌর কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের এক আধিকারিকের কথায়, ‘‘অনেকেই রাস্তার ধারে প্যাকেট ভর্তি আবর্জনা ফেলে দিয়ে চলে যান। তাঁরা মনে করেন, পুরসভার কর্মীরাই সাফাই করবে। এই কু-অভ্যাসের জন্য নিকাশি নালা অবরুদ্ধ হয়ে বর্ষায় রাস্তা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। সাধারণমানুষের এই উদাসীনতার ফল ভুগতে হচ্ছে সকলকে।’’

লেখক

Leave a comment
scroll to top