Close

অনুব্রত বিহীন তৃণ-দূর্গ তবু জয় বিনাদ্বন্দ্বে

অনুব্রত নেই বীরভূমে। তবুও জয় অব্যাহত শাসকশাসকদল তৃণমূলের। হাজারেরও বেশি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী তৃণমূল।


বীরভূমে নেই অনুব্রত, তবুও হাজারেরও বেশি আসনে পঞ্চায়েতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী তৃণমূল বলে সূত্রের খবর। রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর্ব ঘিরে অশান্তি দেখা গিয়েছে। কোথাও ঘটেছে মৃত্যুও। কিন্তু হিংসার ছাপ তুলনামূলক ভাবে অনেক কম বীরভূমে।
গরু পাচার মামলায় তিহার জেলে বন্দী বীরভূমের রাজা তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। তিনি নিজে এলাকায় না থাকলেও, বীরভূমে রাজনৈতিক ভাবে প্রায় অক্ষুন্ন তৃণমূলের প্রভাব। পঞ্চায়েতে মনোনয়ন পর্ব মিটে যাওয়ার পর দেখা গিয়েছে, অনুব্রতের জেলায় ত্রিস্তর পঞ্চায়েতে হাজারেরও বেশি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করেছে তৃণমূল। গত পঞ্চায়েত ভোটে অনুব্রতের এলাকায় থাকাকালীন বীরভূমে তৃণমূলের যে জয়ের ধারা দেখা গিয়েছিল তার কিছুটা আগেই থেমেছে এ বারের আসনসংখ্যা।
গত বার, অর্থাৎ ২০১৮ সালে বীরভূম জেলা পরিষদে আসন ছিল ৪২টি। সব ক’টি আসনেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছিল তৃণমূল। ওই বছরই পঞ্চায়েত সমিতিতে প্রায় সব আসনই দখল করে শাসকদল। বিরোধীদের মতে, গত বারের নির্বাচনে বীরভূমে প্রায় ৯৩ শতাংশ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছিল তৃণমূল। এই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন বিরোধীরা। এ বার পঞ্চায়েত নির্বাচনের অনেকটা আগে থেকেই সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের বার্তা দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তবুও রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর্ব ঘিরে অশান্তি দেখা গিয়েছে বলে সূত্রের খবর। বীরভূমে তুলনায় হিংসা কম হলেও মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ায় বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে। মনোনয়নপর্ব মেটার পর ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের আসন তালিকা প্রকাশ্যে আসতেই দেখা গেল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ে রাজ্যে এগিয়ে রয়েছে অনুব্রতর বীরভূম। কমিশনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী হাজারেরও বেশি সীটে জয়ী তৃণমূল‌।
অনুব্রত গ্রেফতার হতেই বীরভূমে বিরোধী শিবিরের তৎপরতা বাড়তে শুরু করেছিল। ঘন ঘন বীরভূম সফর শুরু করেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এমনকি, গত এপ্রিলে বীরভূম সফর করেন স্বয়ং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তার পরেও পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতি স্তরে অনুব্রত-র জেলায় তৃণমূলের জয় অব্যাহত।
পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণার আগে বীরভূমের বিভিন্ন এলাকায় শাসক দল ছেড়ে বাম বা কংগ্রেস শিবিরে যোগদানের ঢল নেমেছিল বলে দাবি করেছিলেন বাম শিবিরের নেতারা। পঞ্চায়েত নির্বাচন হওয়ার আগেই তৃণমূলের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয় নিয়ে তাঁদের ব্যাখ্যা বাকীদের মতোই। সিপিএমের বীরভূম জেলার সম্পাদক গৌতম ঘোষ বলেছেন, ‘‘শাসক দলের অত্যাচারের চোটে বিরোধী প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়েছেন। আমরা চেষ্টা করেছিলাম সমস্ত আসনেই প্রার্থী দেওয়ার। কিন্তু মনোনয়ন পর্ব শেষ হওয়ার পরেও শাসকদল সন্ত্রাস চালিয়েছে। তারই ফলে এই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়। তবে আমরা বা আমাদের কর্মীরা পিছিয়ে আসছি না। আমরা মাঠে থেকে লড়াই করব।’’
অনুব্রত মণ্ডলের গ্রেফতারের পর বীরভূমের দায়িত্ব নিজে নিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী। বীরভূমের জন্য তৈরি করেছিলেন তৃণমূলের কোর কমিটি। সেই কমিটিতে ঠাঁই দিয়েছিলেন নানুরের তৃণমূল নেতা কাজল শেখকেও। আবহে বীরভূমের ফলে উল্লসিত শাসক শিবির। বিরোধীদের অভিযোগ শুনে তৃণমূলের বীরভূম জেলা কোর কমিটির আহ্বায়ক বিকাশ রায়চৌধুরীর পাল্টা প্রশ্ন, ‘‘বিরোধীরা যদি প্রার্থী দিতে না পারে সে ক্ষেত্রে শাসক দলের কী করার আছে?’’ বীরভূমে পঞ্চায়েতের বাকি আসনগুলিতেও তৃণমূলের এই জয়ের ধারা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন বিকাশ।

লেখক

Leave a comment
scroll to top