Close

যুদ্ধ শুরুর আগে গোপনে কিয়েভ গিয়েছিলেন সিআইএ প্রধান

ইউক্রেন যুদ্ধের আগেই নাকি কিয়েভে গিয়ে রাষ্ট্রপতি ভোলোদিমির জেলেনস্কির সাথে দেখা করেন মার্কিন গুপ্তচর সংস্থা সিআইএ প্রধান ও দেন পরামর্শ।

যুদ্ধ শুরুর আগে গোপনে কিয়েভ গিয়েছিলেন সিআইএ প্রধান

ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর আগে এক গোপন সফরে কিয়েভে গিয়েছিলেন মার্কিন গুপ্তচর সংস্থা সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (সিআইএ) প্রধান উইলিয়াম বার্নস, সম্প্রতি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। 

নিউইয়র্ক-ভিত্তিক পত্রিকা বিজনেস ইনসাইডার সোমবার এক প্রতিবেদনে জানায়, বার্নস ওই সফরে ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং তাকে জানান যে, রাশিয়া তাকে (জেলেনস্কিকে) হত্যা করার পরিকল্পনা করেছে।

যদিও ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে এই সিআইএ রিপোর্টের সত্যতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছিলেন জেলেনস্কি এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওই ধারনাও নাকচ করে দিয়েছিলেন তিনি। 

রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন চালাতে চায়, এ বিষয়েও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে দ্বিমত ছিল ইউক্রেন সরকারের। এমনকি ‘আতঙ্ক ছড়ানোর’ জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে অভিযুক্তও করেছিলেন জেলেনস্কি।

বিজনেস ইনসাইডারের দাবি, ওই গোপন সফরে সিআইএ’র পরিচালক ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টকে সতর্ক করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, রাশিয়ার বিশেষ বাহিনী জেলেনস্কিকে হত্যা করতে আসছে। এ সংক্রান্ত সিআইএ প্রতিবেদনের বিস্তারিত জেলেনস্কিকে জানানোর জন্য বাইডেন বার্নসকে কিয়েভে পাঠিয়েছিলেন বলে নিউ ইয়র্ক টাইমসের সাংবাদিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা ক্রিস হুইপেল জানিয়েছেন।

সবশেষ ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোতে ইউক্রেনের অন্তর্ভুক্তি প্রতিহত করতে এবং দেশটিকে নয়া-নাৎসিমুক্ত করার লক্ষ্যে রাশিয়া বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করে। 

ফেব্রুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি অন্তত এক ডজন হত্যা প্রচেষ্টা থেকে প্রাণে বেঁচে গেছেন বলে দাবি কিয়েভের। অন্যদিকে রাশিয়া বলছে, ন্যাটো সামরিক জোটের ষড়যন্ত্র থেকে রক্ষা পেতেই ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান চালানো হয়েছে। রাশিয়ার জনগণকে রক্ষা করতেই এ পথে হেঁটেছে রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের সরকার।

উল্লেখ্য, সিআইএ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের আওতাধীন একটি বেসামরিক গুপ্তচর সংস্থা। এটি একটি স্বাধীন সংস্থা, যার দায়িত্ব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং উচ্চপদস্থ নীতিনির্ধারকদের কাছে গোপন তথ্য সরবরাহ করা।

তবে বিশ্বের নানা দেশে ঘটা সহিংসতায় গুপ্তচর সংস্থাটি সরাসরি জড়িত বলে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। রাশিয়া আগে অভিযোগ করেছিল যে ২০১৪ সালে ইউক্রেনের ন্যাটো-বিরোধী স্বাধীন সরকার কে উৎখাত করতে সিআইএ-র মদদে কিয়েভ সহ নানা জায়গায় অভ্যুথান ঘটায় সেদেশের নয়া-নাৎসি বাহিনী এবং ব্যাপক গণহত্যা সংগঠিত করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সাল থেকেই দনবাস অঞ্চলে বসবাসকারী ১২,০০০ এর উপর রুশভাষী সাধারণ মানুষের গণহত্যার জন্যে সিআইএ ও তার মদদপুষ্ট নয়া-নাৎসি বাহিনী আজভ ব্যাটালিয়ন কে দায়ী করেন দনবাস অঞ্চলের জনগণ ও মস্কো।

লেখক

Leave a comment
scroll to top