Close

নিউমোনিয়া নাকি অ্যাডিনো ভাইরাস? সুস্থতার পর আবার ফিরছে মারণ রোগ, আতঙ্কে অবিভাবকরা

অ্যাডিনো ভাইরাসে আক্রান্ত শিশুদের অভিভাবকেরা অনেক সময়েই জানতে পারছেনা যে তাদের শিশুদের ঠিক কী হয়েছে, টেস্টের ফলও দেরিতে আসছে, বাড়ছে ভোগান্তি।

বিসি রায় শিশু হাসপাতাল

বিসি রায় শিশু হাসপাতাল: ছবি সত্ত্ব হাসপাতাল কতৃপক্ষ

কলকাতার বিধানচন্দ্র রায় (বিসি রায়) শিশু হাসপাতালের আইসিইউর বাইরের সিড়িতে বসে চুঁচুড়ার একটি শোক স্তব্ধ পরিবার। তারা তাদের এক বছরের শিশু সন্তানকে হারিয়েছে। মৃত শিশুটির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দাদু জানায়, ১৫ দিন জ্বর ছিল শিশুটির। প্রথমে বেলেঘাটা আইডি-তে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় গত রবিবার, ১২ই মার্চ, শিশুটিকে ট্রান্সফার করা হয় বিসি রায় শিশু হাসপাতালে। বৃহস্পতিবার, ১৬ই মার্চ, শিশুটি মারা যায়।

গত ১৫ই মার্চ, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের দেওয়া তথ্য থেকে জানা যাচ্ছে গত আড়াই মাসে শ্বাসযন্ত্রে তীব্র সংক্রমণের সমস্যা নিয়ে ১৩,০৬১ জন শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে অ্যাডিনো ভাইরাসের কারণ ১৯টি শিশুর মৃত্যু ঘটেছে। স্বাস্থ্য দফতর আরো জানাচ্ছে মৃত শিশুদের মধ্যে ১৩ জনের মধ্যে তিন জনের জন্মের সময় কম ওজন, দুই জনের আগে থেকে অন্য ফুসফুসের রোগ, তিন জনের জন্মগত হৃদরোগ, দুই জনের জন্মগত বিপাকীয় রোগ, দুই জনের অপুষ্ট পেশী,ও এক জনের অন্য গুরুতর সংক্রমণের সমস্যা ছিল।

বারাসাত, কদমগাছি থেকে বিসি রায় শিশু হাসপাতালে এসেছেন বছর পঞ্চাশের শেখ ইয়াসিন আলী নিজের ১৮-মাস বয়সী নাতিকে নিয়ে। তাঁদের বাড়ি বইসগাছা। আলী জানান যে প্রথমে বাচ্চার জ্বর আসে, তারপর বুকে সর্দি দেখা যায়। সাধারণ জ্বর ভেবে তাঁরা শিশুটিকে ব্যারাকপুরের একটা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। দুই দিন রেখে হাসপাতাল থেকে শিশুটিকে সুস্থ বলে ছেড়ে দেওয়া হয়। তার দুই দিন পর আবার শিশুটি জ্বরে আক্রান্ত হয়।

আলী জানালেন যে রাতে শিশুটির জ্বর বেড়ে গেলেও তাঁরা কিছুই করতে পারেন না কারণ তাঁদের অঞ্চলে শিশুদের চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই। জ্বরে বাচ্চাটির চোখ রক্ত জমাট বাঁধার মতন লাল হয়ে যায়। সোমবার তাঁরা শিশুটিকে নিয়ে বিসি রায় শিশু হাসপাতালে আসেন। আলী জানালেন যে বৃহস্পতিবার ডাক্তার তাঁদের জানিয়েছেন যে বাচ্চাটির নাকি খুব শ্বাস কষ্ট হচ্ছে ও বুকে সংক্রমণ হয়ে গেছে; তাঁকে আইসিইউতে দিতে হবে।

এদিকে আলী জানালেন ডাক্তার আইসিইউতে বাচ্চাটিকে দেওয়ার কথা বললেও বিসি রায় শিশু হাসপাতালের আইসিইউ-তে খালি বেড নেই। অন্যদিকে ডাক্তার আলী কে বলে দিয়েছেন আইসিইউতে না দিলে শিশুটি বাঁচবে না। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে অনেকচেষ্টা করে, শেষ পর্যন্ত আলী শিশুটির জন্যে আইসিইউ-তে একটা ব্যবস্থা করতে পারেন। সকাল থেকে বিকেল চারটে পর্যন্ত খুব ক্রিটিকাল অবস্থায় শিশুটি আইসিইউর বাইরে ছিল বলে আলী জানান। তিনি বলেন, “তিন দিন জ্বর ছিল না। বাচ্চা সুস্থ ছিল। ভেবেছিলাম ঠিক হয়ে গেছে। হঠাৎ আজ সকাল থেকে খারাপ অবস্থা”।  

১৫ই মার্চের স্ট্যাটাস রিপোর্টে রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে যে এক সপ্তাহ আগে পর্যন্ত যেখানে গড়ে প্রতিদিন ৮০০ জন শিশু হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছিল, সেখানে এখন গড়ে প্রতিদিন ৬০০টি শিশু ভর্তি হচ্ছে। সরকার রিপোর্টে ফাঁকা বেডের একটি হিসাবও হাজির করেছে।

তথ্য সূত্র রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর

বিকাশ মুন্ডার বাড়ি সোনারপুর। তিনি তার চার মাসের  মেয়েকে নিয়ে বিসি রায় শিশু হাসপাতালে এসেছেন। মুন্ডা বলেন, “মেয়ের কাশতে কাশতে দম আটকে আসছে। এর আগে সর্দি কাশি ছিল, আমি প্রাইভেট ডাক্তার দেখাতাম। ওষুধ দিত, খেত, কমে যেত। গত ৮ তারিখ কাশতে আশতে দম আটকে যাচ্ছিল। প্রাইভেট ডাক্তারের কাছে নিয়ে গেছিলাম, নেবুলাইজার দিয়েছিল, ঠিক হয়ে গেছিল। ১০ তারিখ নাগাদ আবার একই অবস্থা হল। গত শুক্রবার এখানে ভর্তি করা হয়। ডাক্তার বলছে নিউমোনিয়া হয়েছে। প্রথমে পার্ক সার্কাসে শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, সেখানে কোনো বেড ছিল না বলে এখানে এনেছি। এখানে এসে জানছি অ্যাডিনো বলে একটা ভাইরাস আছে। আমি ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম। ডাক্তার বলেছে তেমন কিছু নয়, নিউমোনিয়া হয়েছে।”

উত্তর ২৪ পরগনার বাদুড়িয়ার বছর ২২-র সামিমুর রহমান তার তিন মাসের কন্যা সন্তানকে গত শনিবার ভর্তি করেছেন বিসি রায় শিশু হাসপাতালে। রহমান বলেন, “জ্বরের জন্য প্রথমে মেয়েকে বসিরহাটের হাসপাতালে নিয়ে যাই। বসিরহাট থেকে দশদিন পর ছুটি দেয়, দুই দিন পর আবার একই অবস্থা, আবার বসিরহাটে নিয়ে যাই, ওরা ভর্তি করে নেয়। তার পর ওরা ছুটি দেওয়ার পর অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় গত শনিবার এখানে নিয়ে চলে এসেছি। এখানে নিয়ে আসার সময় সর্দি-কাশি, শ্বাসকষ্ট ছিল। এখানে আইসিইউ তে ভর্তি করা হয়, তার পর অবস্থার উন্নতি হলে আবার জেনারেল বেডে দিয়ে দেওয়া হয়েছে।”

রাজারহাটের দিয়ারা গ্রামের সুকুর শেখ তাঁর আট মাসের নাতনির জন্য হাসপাতালে এসেছেন। শেখ জানান যে তাঁর নাতনি এর আগে অ্যাডিনো ভাইরাসের জন্য এক মাস পাঁচ দিন বিসি রায় শিশু হাসপাতালে ভর্তি ছিল। তার মধ্যে শিশুটি আইসিইউতেই ২৪ দিন ভর্তি ছিল। তারপরে শিশুটিকে বিসি রায় শিশু হাসপাতাল থেকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে পাঠানো হয়। প্রায় পাঁচ দিন পর শিশুটি সুস্থ হলে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতাল থেকে তাকে ছুটি দেওয়া হয়। তবে পরে শেখের নাতনির অবস্থায় অবনতি হওয়ায় তাকে বিসি রায় শিশু হাসপাতালে রেফার করা হয়।

যদিও রাজ্যে সমস্ত সরকারি হাসপাতালের শিশু বিভাগে অ্যাডিনো ভাইরাসের চিহ্নিতকরণ বা চিকিৎসা হয় না। সেই হাসপাতাল গুলো সংকটাপন্ন শিশুদের বিসি রায় এর মত বিশেষ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। ফলত অন্যান্য সরকারি হাসপাতালে বেড ফাঁকা থাকলেও বিসি রায় শিশু হাসপাতালের মত বিশেষ হাসপাতাল গুলোতে রোগী সংখ্যা বেড়ে চলেছে।

দক্ষিণ কলকাতার বাঙুর হাসপাতালের সুপার ডাক্তার শিশির নস্কর বলেন “বাঙুরে এখনো অ্যাডিনো ভাইরাসের কোনো কেস রিপোর্টেড হয়নি। কোভিডের মত আলাদা কোনো ওয়ার্ডও গঠন করা হয়নি। যদি আমাদের এখনে সেরকম কোনো কেস আসে তবে আমরা বিসি রায় হাসপাতালে রেফার করে দেব।”

একই মতামত জানিয়েছেন দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার চিফ মেডিক্যাল অফিসার অব হেলথ, ডাক্তার মুক্তিসাধন মাইতি। ডাক্তার মাইতি বলেন, “বাঙুরে অ্যাডিনোর ডায়গনিসিস হয়না। আমরা শ্বাস কষ্টের চিকিৎসা করে দিচ্ছি, তাতে ১০/১৫ দিনের মধ্যে বাচ্চা সুস্থ হয়ে যাচ্ছে। বাড়াবাড়ি হলে আমাদের বিসি রায় হাসপাতালে রেফার করে দিতে হবে।” তার দাবি জেলার পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক।

বিসি রায় শিশু হাসপাতালের আইসিইউর বাইরে প্লাস্টিক বিছিয়ে বসে থাকা অবিভাবকদের অনেকেই জানেন না তাদের সন্তানের নির্দিষ্ট ভাবে ভাবে ঠিক কী হয়েছে। অনেকেরই টেস্ট রিপোর্ট এখনো আসেনি। কিন্তু জ্বর, শ্বাস কষ্ট, চোখ অস্বাভাবিক রকম লাল হয়ে যাওয়া এবং সুস্থ হয়ে যাওয়ার পর আবার রোগাক্রান্ত হওয়া অ্যাডিনোতে আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে একটি প্রবণতা হিসেবে দেখা দিয়েছে। কেউ কেউ অসুস্থ শিশুদের হাসপাতালে আনার পর শুনছেন মারণ অ্যাডিনো ভাইরাসের নাম।

বৃহস্পতিবার, ১৬ই মার্চ, বিসি রায় শিশু হাসপাতালে অ্যাডিনো ভাইরাসের চিকিৎসার গাফিলতির অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখায় প্রদেশ মহিলা কংগ্রেস। প্রদেশ মহিলা কংগ্রেস সভানেত্রী সুব্রতা দত্ত ইস্ট পোস্ট বাংলাকে বলেন, “এই মাসের শুরুতে প্রদেশ কংগ্রেসের তরফে ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছিলো। তার পর থেকে কোনো অবস্থার পরিবর্তন আমরা লক্ষ্য করিনি। সুপার বলেন আমাদের পরিকাঠামো ভীষণ দুর্বল, আমাদের অত আউসিইউ নেই, আমরা সেই ভাবে পরিষেবা দিয়ে পারছি না। কিন্তু আমরা লেকের সামনে বিসি রায় হাসপাতালে বেড বাড়িয়েছি, ওইখানে আইসিইউ করেছি। ওখানেও আমরা বাচ্চাদের শিফট করছি। আমাদের সেখানে বক্তব্য ছিলো এই যে আপনি বাড়াতে হবে বলছেন,কিন্তু এটাতো নতুন ঘটনা নয়। আমি এখানকার স্থানীয়, আমি জানি প্রতিবছর বিসি রায় হাসপাতালে প্রচুর শিশুর মৃত্যু হয়। এটা আমার প্রথম যাওয়া নয়। আমি এর আগেও দুই বার গেছি। এডিনো ভাইরাস এবার হলেও শিশু মৃত্যু আগের বছরও হয়েছে।” 

দত্ত ইস্ট পোস্ট বাংলার কাছে অভিযোগ করেন যে রাজ্য সরকার রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলোর শিশু চিকিৎসার পরিকাঠামো খাতে যদি সঠিক হারে বরাদ্দ বাড়াতো ও ব্যবস্থা উন্নত করতো তাহলে অনেক শিশু মৃত্যু রোধ করা যেত। তিনি রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগ গুলোর প্রেক্ষিতে বলেন যে যদি রাজ্য সরকার সেই অর্থের তছরুপ না করে স্বাস্থ্য খাতে খরচ করতো “তাহলে এতগুলো মায়ের কোল খালি হত না”।

ইস্ট পোস্ট বাংলার তরফে বিসি রায় শিশু হাসপাতালের সুপারের সাথে দেখা করতে যাওয়া হলে, তাকে পাওয়া যায়নি। হাসপাতালের তরফ থেকে কোনো আধিকারিক বিবৃতি দিতে রাজি হননি।

রাজ্যের তরফ থেকে ক্রমাগত ভাবে অ্যাডিনো ভাইরাস নিয়ে আশ্বাসবাণী দেওয়া হলেও, সামগ্রিক ভাবে রাজ্যের, বিশেষ করে দক্ষিণ বঙ্গের সরকারি হাসপাতালগুলোর, শিশু বিভাগে বিশেষ চিকিৎসা ব্যবস্থার ও পরিকাঠামোর অভাবের ফলে বিসি রায় শিশু হাসপাতালে রুগীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে। অন্যদিকে অপর্যাপ্ত পরিকাঠামোর কারণে এই সমস্ত শিশুদের চিকিৎসা পরিষেবা দিতে পারছে না হাসপাতালটি, এবং এর ফলে বেড়ে চলেছে শিশু মৃত্যুর হার। আপাতত অ্যাডিনোতে আক্রান্ত তাঁদের শিশুদের কী ভাবে সুস্থ করে বাড়ি ফেরৎ নেওয়া যায় সেই চিন্তায় ডুবে আছেন পরিজনেরা। আদেও এই পরিস্থিতির থেকে পরিজনদের ও রাজ্যের শিশু স্বাস্থ্যের মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা আছে নাকি সেটাই এখনকার একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন।

লেখক

  • সৌম্য মন্ডল

    সৌম্য মন্ডল একজন আর্থ-সামাজিক এবং ভূ-রাজনৈতিক বিশ্লেষক। তিনি ইস্ট পোস্ট বাংলায় মুখ্য সম্পাদক হিসাবে কর্মরত। মূলত উদীয়মান বহু-মেরুর বিশ্বের নানা ঘটনাবলীর তিনি বস্তুনিষ্ঠ বিশ্লেষণ করেন।

সৌম্য মন্ডল একজন আর্থ-সামাজিক এবং ভূ-রাজনৈতিক বিশ্লেষক। তিনি ইস্ট পোস্ট বাংলায় মুখ্য সম্পাদক হিসাবে কর্মরত। মূলত উদীয়মান বহু-মেরুর বিশ্বের নানা ঘটনাবলীর তিনি বস্তুনিষ্ঠ বিশ্লেষণ করেন।

Leave a comment
scroll to top