Close

সৌদির চিঠি: রিয়াধে বইমেলায় বাঙালি (পর্ব ২২)

প্রবাসের চিঠিতে সৌদি আরবের রিয়াধে বইমেলায় এক অসাধারণ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরছেন প্রবাসী বাঙালি পথিকৃৎ সরকার।

প্রবাসের চিঠিতে সৌদি আরবের রিয়াধে বইমেলায় এক অসাধারণ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরছেন প্রবাসী বাঙালি পথিকৃৎ সরকার।

সৌদির চিঠি পর্ব ২১

রিয়াধে বইমেলার এক অসাধারণ অভিজ্ঞতা হয়ে গেল! এখানে অনেক দিন ধরেই বইমেলা হয় শুনেছিলাম, কলকাতার বাঙালি হিসেবে আর নিজেকে আটকে রাখতে পারলাম না সেই অভাবনীয় ঘুরতে যাওয়া থেকে। আশঙ্কা ছিল যে অধিকাংশ প্রকাশক আরবি হতে পারেন, পৌঁছে দেখছি ইংরেজি ভাষায় বই একেবারে নেই বললেই চলে। সমস্ত আরবি দেশগুলোর স্টল গুলোর মধ্যে দুটো মার্কিন এবং ইংরেজ প্রকাশকের স্টল এক কোণে টিমটিম করছে দেখে এগিয়ে গেলাম কয়েকটা ইংরেজি বইয়ের আশায়, গিয়ে বুঝলাম তেমন কোনো কালেকশন এখনও নেই, এবং সবাই লুকিয়ে ক্যাশে বিক্রি করতে চাইছেন! কোনো ম্যানেজার অথবা অর্গানাইজার সামনে দেখলেই গুটিয়ে যাচ্ছেন আবার!

আমিও বেশ আনন্দ পেলাম অল্প দামে কিনতে পেরে। সেই ছোটোবেলা থেকে বইমেলার জন্য সারা বছরের টাকা জমিয়ে রাখারও এক আলাদা মজা এবং প্রাপ্তির মজা ছিল আমার কাছে। তারপর থেকে দিল্লি তে পড়াশোনা করতে চলে যাওয়া, এবং করোনা প্যান্ডেমিকের জন্য অনেকদিন বইমেলার আনন্দ টা যেন মুছে গিয়েছিল আমার জীবন থেকে। নিজে চাকরি করে বইমেলা উপভোগ করার সুযোগ তো কলকাতায় থাকতে পাওয়ার আশা ছেড়েই দিয়েছিলাম। এখন সেই সুখ ঘর থেকে এত দুরে আকস্মিকভাবে পেয়ে আর উল্লাস ধরে রাখতে পারিনি! প্রায় এক মাসের অর্ধেক মাইনে খরচা করে ফেললাম এক বেলার মধ্যে, তারপর খেয়াল হলো যে এত বই তো ব্যাগে করে নিয়েও আসতে হবে ভারতে ফেরার সময়ে, তখন তো দামের থেকে বেশি ওজনের জন্য ক্ষতিপূরণ ভরতে হবে। তাই অল্পতেই ইতি টানতে গিয়ে হঠাৎ থমকে গেলাম।

দেখি… সারি সারি লাল চিহ্ন! মানে, আক্ষরিক অর্থেই তাই। যেখানে আমেরিকার ছোট্ট একটা স্টল, সেখানে চিনের তিন তিনটে বড়ো বড়ো স্টল। এইবারের রিয়াধ বুক ফেয়ারের “গেস্ট অফ অনার” ওমান রাজতন্ত্র হলেও মনে হচ্ছে যেন সমস্ত আয়োজন চিনের জন্যই করা হয়েছে। একটি ছোট এবং একটি বড়ো স্টল, যেখান থেকে সবাই কেনাকাটা করছেন, এবং আরেকটা বিশাল লাল প্ল্যাটফর্ম, শুধুমাত্র চিন এবং চিনের বামপন্থী রাজনীতির বই সাজানোর জন্য। আরবি অনুবাদিত প্রচুর লাল কিতাব সাজানো দেখে আমার তো মাথা ঘুরে যাওয়ার যোগাড়! তার মধ্যেই আবার দেখছি কত কম বয়সী সৌদি যুবকরা চিনাদের জেনারেল সেক্রেটারি শি জিনপিং এর আরবি তে অনুবাদ করা বই গুলো উল্টে পাল্টে দেখে কিনছেন, এবং কাস্তে হাতুড়ি সজ্জিত বই গুলোর দিকে জুলজুল করে তাকিয়ে আছেন। দেখেই যেন কিরকম একটা শিহরণ খেলে গেল আমার মধ্যে!

আমরা ইয়ার্কি করে বললাম যে এতদিন মার্কিনীদের সাথে বন্ধুত্ব রেখে শুধু যুদ্ধ চলেছে পুরো মিডল ইস্টে, এখন চিন হাত বাড়িয়েছে তাই এত জমজমাট বইমেলা হচ্ছে! সৌদির রাজপুত্র সালমান নিজে একবার স্বীকার করেছিলেন যে সমাজতন্ত্র রুখতে আমেরিকা নাকি আগের শতাব্দীতে রাজার কাছে অনুরোধ করেছিল ওয়াহাবি ভাবধারার জোর প্রচার চালাতে। কিন্তু এখন মিডল ইস্ট অঞ্চলে ব্যবসা বাণিজ্য, অর্থনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে চিনের প্রভাব বিস্তার বেড়েই চলেছে প্রতি বছর। এই বছর বইমেলায় প্রতি দিন নাকি লাখে লাখে মানুষ ঘুরতে এবং বই কিনতে আসছেন, এই পিডিএফের যুগেও। কিন্তু এত মানুষের মধ্যে কোনো বইপ্রেমী বাঙালি খুঁজে পেলাম না। বাঙালি অথবা বাংলাদেশী পাচ্ছি তো শুধুমাত্র সাফাইকর্মী হিসেবেই পাচ্ছি এত বড়ো বইমেলায়। যেই বাঙালি নিজেদের মেধা নিয়ে এত অহঙ্কার করে, সেই বাঙালি সৌদির মতো জায়গাতেও বইমেলা তে শুধু সাফাই কর্মী হিসেবেই আটকে আছেন।

তা সেই নিয়েই মনে পরলো, এমনই এক শ্রমিক, বাংলাদেশের এক গোঁড়া মুসলমান, তার মুখে সেদিন বলতে শুনলাম, “এরম বামপন্থী বলেই পেরেছে চীন!” যদিও তার বামপন্থা নিয়ে কোনও ধারনা নেই তবুও তার মনে হয়েছে যে চীনের সমস্ত কার্যকলাপ আমেরিকার থেকে অনেক অনেক বেশি লাভ এনে দেবে আমাদের দেশে গুলোর জন্য। ছেলেটা নিজের নামটাও ঠিকমতো লিখতে জানে না, স্কুলে পড়াশোনার সুযোগই পায়নি কোনোদিন। কি ভেবে অথবা জেনে যে এমন এক বিচার করে ফেললো কে জানে! অনেক স্টলে যেখানে দেখছি আরবি ভাষায় হিটলারের “মেইন কাম্প্ফ” স্থান পেয়েছে, সেখানে তার মোকাবিলা করতে সেই সাফাই শ্রমিকের কথা মতো লাল চিন গোটা একটা সেকশন জুড়ে কাস্তে হাতুড়ির দূর্গ বানিয়ে রেখেছে।

লেখক

Leave a comment
scroll to top