Close

রাজ্য-রাজ্যপাল সঙ্ঘাত: উপাচার্যবিহীন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষা দফতরের সঙ্গে কথা না বলেই একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নিয়োগ করেছেন রাজ্যপাল আচার্য সিভি আনন্দ বোস।

ছবি স্বত্ব; মানবেন্দ্র নস্কর / ইস্ট পোস্ট বাংলা

সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে, শিক্ষা দফতরের সঙ্গে কথা না বলেই একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নিয়োগ করেছেন রাজ্যপাল আচার্য সিভি আনন্দ বোস। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় সহ একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নিয়োগ করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে গত বুধবার রাজভবনে একটি বৈঠক করেন রাজ্যপাল যেখানে শিক্ষা দফতরের কোনও প্রতিনিধি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বলে জানা গিয়েছে। প্রসঙ্গতঃ, এই বৈঠকের ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই নিয়োগ করা হল উপাচার্য।
উল্লেখ্য উপাচার্য নিয়োগের জন্য সার্চ কমিটি রয়েছে রাজ্য শিক্ষা দপ্তরের এবং সেই কমিটির সুপারিশ অনুযায়ীই উপাচার্য নিয়োগ করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে তেমনটা ঘটেনি বলেই অভিযোগ।

গত ৩১শে মে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যাপক সুরঞ্জন দাসের মেয়াদ শেষ হয়, তিনি বর্তমানে অ্যাডামাস ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক। অন্যদিকে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য পদে নিয়োগ করা হয়েছে অমিতাভ দত্তকে, যিনি যাদবপুরের সহ উপাচার্য ছিলেন। অমিতাভ দত্ত সহ বেশ কয়েকজন অভিজ্ঞ অধ্যাপককে বুধবার রাজভবনের বৈঠকে ডেকেছিলেন রাজ্যপাল। তাঁরা উপাচার্য হতে ইচ্ছুক কি না, তা জানতে চাওয়া হয়েছিল। এখন সরকারী বা সরকার পোষিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে আচার্যের নিয়োগ করা উপাচার্যদের রাজ্য উচ্চশিক্ষা দফতর স্বীকৃতি দেবে না বলে জানালেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তাঁর অভিযোগ উচ্চশিক্ষা দফতরের সঙ্গে কোনও আলোচনা না করেই আচার্য অর্থাৎ রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস নিজের পছন্দ অনুযায়ী উপাচার্য নিয়োগ করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলির নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতে নিতে চাইছেন। এই টানাপোড়েনের চোটে বর্তমানে কার্যত উপাচার্যবিহীন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়।

এর আগে রাজ্যপাল বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের কাছ থেকে সাপ্তাহিক রিপোর্ট তলব করায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল শিক্ষা দফতর। এবার উপাচার্য নিয়োগের ঘটনায় সেই সংঘাত চরমে উঠেছে। তবে রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘর্ষের বাজে প্রভাব পড়ছে শিক্ষার উপর, এমনটাই মত শিক্ষাবিদদের একটা বড় অংশের।

লেখক

Leave a comment
scroll to top